Home EPZ লিগ্যামেন্ট তৈরিতে স্পাইডার সিল্ক

লিগ্যামেন্ট তৈরিতে স্পাইডার সিল্ক


মাকড়সা নামের প্রাণীটিকে আমরা সবাই চিনি।আমরা সবাই জানি মাকড়সা তার শিকারের জন্য জাল বুনে। মাকড়সা এই জাল কি শিকার ধরার কাজেই ব্যবহার করা হয়?না, মাকড়সার জাল একধরনের সিল্ক।
সব প্রজাতির মাকড়সা থেকে সিল্ক প্রস্তুত করা যাবে এমনটা নয়। বিশেষ প্রজাতির মাকড়সাই এক্ষেত্রে শক্তিশালী সিল্ক তৈরী করতে পারে। মাকড়সার বিশেষত্ব হলো অবিরত সুতা তৈরীর কৌশল ও অসাধারণ জ্যামিতিক জ্ঞান সম্বলিত জাল বোনার ক্ষমতা। এই সূত্রক একইসাথে প্রাকৃতিকভাবে প্রাপ্ত অন্যান্য ফাইবারের থেকে অনেকগুণ বেশি শক্তিশালী ও স্থিতিস্থাপক।
জাল বুনন পদ্ধতিঃ
মাকড়সার জাল বোনাও একটা বিশাল মুন্সিয়ানার কাজ। প্রথমে সে সামনের দিকে বাতাসে সুতোর মতো জালের একটি শাখা ছুঁড়ে দেয়। যদি সেই সুতাটি কোনো বস্তুর সঙ্গে আটকে যায়, তাহলে মাকড়সা সুতাটির অপর প্রান্ত ঐ বস্তুর সঙ্গে আটকে দেয় এবং শুরুর প্রান্তও আটকে দেয়। এভাবে মাকড়সা শুরুর প্রান্ত আর শেষ প্রান্ত মিলিয়ে একটি ব্রিজের মতো তৈরি করে।
এরপর মাকড়সা ঐ সুতোর ব্রিজের শুরুর প্রান্ত থেকে শেষ প্রান্তে হেঁটে যায় এবং হেঁটে যাওয়ার সময় খুব ঢিলা করে আরও একটি সুতো ঐ ব্রিজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নিচের দিকে ঝুলিয়ে দেয়। এরপর ঐ ঝুলন্ত সুতোর মাঝ থেকে আরেকটি সুতো লম্ব বরাবর টেনে নিয়ে নিচের দিকে এমনভাবে নেমে আসে যেন ইংরেজি Y অক্ষরের মতো মনে হয়। এরপরে Y অক্ষরের একদম নিচের প্রান্ত থেকে একদম প্রথমে তৈরি করা শুরুর প্রান্ত আর শেষ প্রান্ত সুতো দিয়ে যুক্ত করে V অক্ষরের মতো অংশ তৈরি করে। এভাবে একটা ত্রিভুজের মতো জাল তৈরি হয়।
মাকড়সা থেকে সুতা আহরণের যে যন্ত্রটি ব্যবহার করা হয়েছে সেটি একসাথে ২৪টি মাকড়সার সুতা আহরণ করতে পারে। মাকড়সার কোনো ক্ষতি না করেই করা হয় এই আহরণ কর্ম। আহরিত সুতা হতে দেখা যায় যে, ১৪ হাজার মাকড়সা থেকে যে পরিমাণ সুতা পাওয়া যায় তার ভর খুব বেশি হলে এক আউন্সের মতোই হবে এবং বয়নকৃত ঐ ফেব্রিকের ভর ছিল প্রায় ২.৬ পাউন্ডের মতো। অর্থাৎ এরা অন্যান্য ফাইবার থেকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ হালকা হবে।
স্পাইডার সিল্ক এর বৈশিষ্ট্যঃ
এই ফাইবার নমনীয়, ওয়াটারপ্রুফ। তন্তুগুলি কোন।ভাঙ্গন সমস্যা ছাড়াই 40% পর্যন্ত তার মূল দৈর্ঘ্য পর্যন্ত প্রসারিত হতে পারে। প্রসারণ যোগ্য হওয়ায় সড়ক নিমার্ন কাজে সক্ষম। চুলের চেয়েও সুক্ষ ও বাতাসে ভাসতে পারে। অত্যন্ত দামী ফেব্রিক তৈরিতে ব্যবহায় হয়ে আসছে।
উল্লেখ্যযোগ্য কিছু ব্যবহার :
১.বুলেট-প্রুফ পোশাক তৈরিতে।
২.জাল, সীট বেল্ট তৈরিতে।
৩.অস্ত্রোপচারের থ্রেড কৃত্রিম টিউন বা লিগ্যামেন্ট তৈরিতে।
৪. চিকিৎসা শিল্পে ব্যান্ডেজ তৈরিতে ব্যবহার হয়ে থাকে।
৫. কৃত্রিম ফুসফুস মেরামতের জন্য ব্যবহার করা হয়।
তথ্য ও ছবিঃউইকিপিডিয়া
Fouzia Jahan Mita
NITER 10th Batch

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author