Home Campus News এসকেটেকে ‘হাল্ট প্রাইজ অন ক্যাম্পাস’ প্রোগ্রামের ফাইনাল শিডিউল প্রকাশ!!

এসকেটেকে ‘হাল্ট প্রাইজ অন ক্যাম্পাস’ প্রোগ্রামের ফাইনাল শিডিউল প্রকাশ!!

‘লিডিং এ জেনারেশন টু চেঞ্জ দ্য ওয়ার্ল্ড’ শ্লোগানকে সামনে রেখে ‘হাল্ট প্রাইজ অন ক্যাম্পাস’ প্রোগ্রামের কার্যক্রম শুরু করেছিল শেখ কামাল টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ারিং কলেজ।ক্যাম্পাসে প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া এই অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রামের রেজিষ্ট্রেশন ৭ নভেম্বর শুরু হয়ে চলেছে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত।

গত (৭ নভেম্বর) সংগঠনের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজে রেজিস্ট্রেশন লিংক উন্মুক্ত করার মাধ্যমে ইভেন্টটি শুরু হয়েছে।

‘ফুড ফর গুড-ট্রান্সফরমিং ফুড ইনটু ভেহাইকেল ফর এ চেঞ্জ’ এবারের এই প্রতিপাদ্য বিষয়টি নিয়ে বিশ্বব্যাপী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের ‘নোবেল পুরষ্কার’ খ্যাত আন্তর্জাতিক এই প্রতিযোগিতা।

রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে ‘হাল্ট প্রাইজ ফাউন্ডেশন’ কর্তৃক প্রদত্ত বিষয়ের ওর নির্ভর করে একটি সমাধানমূলক আইডিয়া প্রদান করতে হবে।

প্রসঙ্গত,ক্যাম্পাসে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য হাল্ট প্রাইজ বিশ্বের বৃহত্তম বিজনেস আইডিয়া সৃষ্টিকারী বার্ষিক প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর ১২১ টি দেশের প্রায় ১৫০০ ক্যাম্পাসে এক যোগে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রেক্ষাপট ভেদে দেয়া সমস্যার সমাধান কল্পে সেরা আইডিয়া প্রদানকারী দলকে হাল্ট প্রাইজ ফাউন্ডেশন কর্তৃক এক মিলিয়ন মার্কিন ডলার পুরুষ্কারে ভূষিত করা হয়।

কার্যক্রম শুরুর দিন থেকে গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে আজ তারা চূড়ান্ত প্রোগ্রামের সিডিউল প্রকাশ করেছে।

১৮-১১-২০২০ থেকে ২৮-১১-২০২০ তারিখ পর্যন্ত ওয়ার্কশপ হবে যেখানে গেস্ট হিসেবে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অভিজ্ঞ শিক্ষার্থীরা থাকবেন।

০৩-১২-২০২০ তারিখে আইডিয়া সাবমিট করতে হবে।

০৯-১২-২০২০ তারিখে স্লাইড এবং ভিডিও সাবমিট করতে হবে(সেমিফাইনাল)।

১৩-১২-২০২০ তারিখে ফাইনাল ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হবে।

যেখান থেকে আমরা পাব ক্যাম্পাসের বিজয়ী দলকে।

২০২১ সালে হাল্ট প্রাইজের চ্যালেঞ্জ হিসেবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, অর্থনীতিতে উদ্দীপনা এবং ২০৩০ সালের মধ্যে এক কোটি লোককে কর্মসংস্থানে সংযুক্তির লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে আন্তর্জাতিক ‘হাল্ট প্রাইজ ফাউন্ডেশন’।

এ বিষয়ে ক্যাম্পাস ডিরেক্টর মোঃ মোক্তার হোসেন বলেন ” সেই শুরু থেকে অরগানাইজার কমিটির সকল সদস্যদের সক্রিয় কার্যক্রমে আমরা ফাইনাল মোমেন্টে চলে এসেছি।
আশা করি ফাইনালে যারা থাকবে সবাই উপকৃত হবে এবং আমরা সফলভাবে এই অন-ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম শেষ করবো।
সবার জন্য আমরা আয়োজন করছি বিভিন্ন ওয়ার্কশপ, যার মাধ্যমে তারা নিজেদের আরও দক্ষ করতে সক্ষম হবে এবং সেরা আইডিয়া নিয়ে অংশগ্রহণ করবে এই প্রোগ্রামে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author