Tuesday, July 23, 2024
More
    HomeTextile Poemক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের পোশাক পরিচ্ছদ -পর্ব ২ঃ চাকমা দের পোশাক পরিচ্ছদ।।

    ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের পোশাক পরিচ্ছদ -পর্ব ২ঃ চাকমা দের পোশাক পরিচ্ছদ।।

    বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি ক্ষুদ্র কিন্তু জনবহুল রাষ্ট্র । জনসংখ্যার অধিকাংশ বাঙালি হলেও অনেক ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী রয়েছে যাদের উপজাতি বলেও উল্লেখ করা হয়।

    বাংলাদেশের জনসংখ্যার মাঝে উপজাতি জনগোষ্ঠির সংখ্যা ১৫ লক্ষ ৮৭ হাজার প্রায়। যা সমগ্র জনসংখ্যার এক শতাংশের চেয়েও কম(১.১১%) । বাংলাদেশের উপজাতি জনগোষ্ঠীর অধিকাংশই পার্বত্য চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ , সিলেট ও রাজশাহী অঞ্চলে বসবাস করে । বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ উপজাতিক গোষ্ঠী হল চাকমা।

    বাংলাদেশের রাঙামাটি ও খাগড়াছড়িতে এদের সংখ্যা বেশি। তবে বান্দরবানেও চাকমাদের উপস্থিতি রয়েছে। চাকমা জনগোষ্ঠীর কিছু অংশ বর্তমান ভারতের উত্তর-পূর্বাংশে তথা ত্রিপুরা ও অরুণাচল রাজ্যে বসবাস করছে। এছাড়া চাকমাদের বড় একটি অংশ অভিবাসন নিয়ে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া ও জাপান সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছে

    চাকমাদের পোশাক পরিচ্ছদঃঃ

    চাকমা মহিলাদের পোশাক—-

    চাকমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি, লোক সাহিত্য ও ঐতিহ্য আছে। চাকমারা কোমর জড়ানো গোড়ালি পর্যন্ত পোশাক পরে যাকে পিনোন বলা হয়। কোমরের উপর অংশকে বলা হয় হাদি। হাদি আর পিনোন সাধারণত রঙবেরঙের বিভিন্ন নকশার হয়।।

    চাকমা মেয়েদের নিম্নাংশের পোশাক ‘পিনন’ অনেকটা লুঙ্গির মতো। এতে কোন সেলাই থাকে না, দৈর্ঘ্যে ৪.৫ হাত এবং প্রস্থে ২.৫ হাত। পিননের একদিকে নকশাসমৃদ্ধ অাঁচল থাকে যাকে চাবুকি বলা হয়। চাকমাদের পিননের জমিন সাধারণত কালো, উপরে ও নিচে চওড়া রঙিন পাড় থাকে। অাঁচলে বিভিন্ন নকশা ফুটিয়ে তোলা হয়। পিনন পরিধানের সময় চাবুকি বাঁ দিকে থাকে।চাকমা রমণীদের উপরের অংশের পোশাক খাদি বা বক্ষবন্ধনী দৈর্ঘ্যে ৩.৫ হাত এবং প্রস্থে ২.৫ হাত।
    খাদি দুই ধরনের: রাঙাখাদি

    এবং চিবিকটানা খাদি।

    রাঙাখাদিতে বিভিন্ন নকশা তোলা হয়। এ ধরনের খাদি যুবতীরাই পরিধান করে। আটপৌরে ব্যবহারের চিবিকটানা খাদিতে সাধারণত কোন নকশা হয় না।
    *বর্তমানে চাকমা রমণীরা পিনন এবং খাদির সঙ্গে ব্লাউজের মতো জামা পরিধান করে। অনেক চাকমা মহিলা মাথায় খবং ব্যবহার করে।

    চাকমা পুরুষদের পোশাক পরিচ্ছদঃঃ


    চাকমা পুরুষদের পোশাক-পরিচ্ছদের মধ্যে তেমন বৈচিত্র্য নেই। এরা জামা (জুন্নাছিলুম), খবং এবং ধুতি জাতীয় কাপড় পরিধান করে।

    চাকমারা আলাম নামে একটি কাপড়ে তাদের ঐতিহ্যবাহী নকশা সংরক্ষন করে রাখে। আলামের অনুকরণে পরবর্তী বংশধররা তাদের পোশাকে নকশা করে।

    চাকমারা নিজেদের কাপড় নিজেরাই তৈরি করে। প্রত্যেক ঘরে ঘরেই তাঁত আছে তাদের।

    তথ্যঃ উইকিপিডিয়া,পাহাড়ি নিউজ।

    Writer Information :::
    Fouzia Jahan Mita
    Department Of Textile Engineering.
    NITER –10th Batch.
    Campus Ambassador TES.

    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    Most Popular

    Recent Comments