Sunday, May 26, 2024
More
    HomeIndustrial Calculationগার্মেন্টস কোস্টিং সম্পর্কে যা জানা খুবই জরুরি

    গার্মেন্টস কোস্টিং সম্পর্কে যা জানা খুবই জরুরি

    Kazi Takbir Hossain

    বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি মুখি শিল্প খাত হল এই টেক্সটাইল সেক্টর।গার্মেন্টস ট্রেড মুলত একটি চেইন সিস্টেম এর মধ্য আবদ্ধ। কোম্পানির মালিক থেকে শুরু করে গেট এর দারোয়ান পর্যন্ত সকলের সহযোগিতায় একেকটি পোশাকের জন্ম।আর একটি পোশাক তৈরীতে কি পরিমান খরচ হল সেই খরচ কেই costing বলা হয়।আরেকভাবে বলা যায় যে গার্মেন্টস কোস্টিং হলো পণ্যের উৎপাদনে খরচ সম্পর্কিত তথ্য এবং বিবরণ নির্ধারণ করার পদ্ধতি।এটি উৎপাদন প্রক্রিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং এর মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করা হয়।Garments businesses মুলত costing এর উপর নিভরশীল। গার্মেন্টস কোস্টিং এর মৌলিক উদ্দেশ্য হলো প্রযোজ্য খরচের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় বাজেট নির্ধারণ করে এবং সম্পূর্ণ উৎপাদন প্রক্রিয়ার খরচ নির্ধারণ করা

    গার্মেন্টস কোস্টিং নির্ধারণের বিভিন্ন উপাদানগুলো হলো:


    কাঁচামাল: এর মধ্যে রয়েছে কাপড়, ট্রিম, বোতাম, জিপার, থ্রেড, লেবেল ইত্যাদির মতো কাঁচামাল কেনার খরচ। এই উপকরণগুলি আমদানির সাথে যুক্ত অতিরিক্ত খরচও অন্তর্ভুক্ত থাকে। 

    শ্রম খরচ: এর মধ্যে পোশাক উৎপাদন প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত শ্রমিকদের মজুরি এবং বেতন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এতে ওভারটাইম বা ইনসেনটিভ পেমেন্টও অন্তর্ভুক্ত থাকে। 

    ওভারহেড খরচ: এইগুলি পরোক্ষ খরচ। ওভারহেড খরচের উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে কারখানার ভাড়া, ইউটিলিটি, রক্ষণাবেক্ষণের খরচ, প্রশাসনিক খরচ এবং যন্ত্রপাতির অবমূল্যায়ন।

    প্যাকেজিং এবং পরিবহন: এর মধ্যে রয়েছে প্যাকেজিং উপকরণের খরচ, যেমন পলিব্যাগ, কার্টন এবং লেবেল, সেইসাথে তৈরি পোশাকগুলি উৎপাদন সুবিধা থেকে গুদাম বা বিতরণ কেন্দ্রে পরিবহনের খরচ।

    গুণমান নিয়ন্ত্রণ: এতে গুণমান নিয়ন্ত্রণের কর্মীদের খরচ, সরঞ্জাম এবং যেকোনো অতিরিক্ত পরীক্ষা বা সার্টিফিকেশন ফি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
    শুল্ক এবং কর: এগুলি হল আমদানি শুল্ক, শুল্ক ফি এবং আমদানি করা কাঁচামাল বা তৈরি পোশাকের উপর আরোপিত কর। উৎপাদনের সামগ্রিক খরচ গণনা করার সময় এগুলি বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। 

    এই উপাদানগুলি সম্মিলিতভাবে পোশাকের সামগ্রিক খরচে অবদান রাখে, পণ্যের চূড়ান্ত বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে।

    গার্মেন্ট কস্টিং এ বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। এখানে কিছু সাধারণভাবে ব্যবহৃত পদ্ধতি রয়েছে


    Activity-Based Costing (ABC) Method: এটি পোশাকের জটিলতা, প্রতিটি প্রক্রিয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সময় বিবেচনা করে আরও সঠিকভাবে ব্যয় বরাদ্দ করতে সহায়তা করে।

    Absorption Costing Method: এটি প্রতিটি পোশাকের জন্য নির্দিষ্ট খরচের একটি অংশ বরাদ্দ করে। এই পদ্ধতিটি প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ উভয় খরচ সহ প্রতি ইউনিটের সম্পূর্ণ খরচ নির্ণয় করতে সাহায্য করে।
    Target Costing Method: একটি পোশাকের টার্গেট বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করা এবং তারপরে অনুমোদিত খরচ গণনা করার পিছনে এটি জড়িত। এই পদ্ধতিটি পণ্য এবং প্রক্রিয়াগুলি ডিজাইন করতে সহায়তা করে যা গুণমান এবং গ্রাহক সন্তুষ্টির সাথে আপস না করেই লক্ষ্য অর্জন করে।  

    গার্মেন্টস costing বিভিন্ন কারণে গুরুত্বপূর্ণ

    এটি সঠিক উৎপাদন খরচ নির্ধারণে সাহায্য করে, যা একটি প্রতিযোগিতামূলক এবং লাভজনক বিক্রয় মূল্য নির্ধারণের জন্য অপরিহার্য। পোশাক উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে খরচ সনাক্ত করতে এবং নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম করে। খরচের উপাদানগুলি বিশ্লেষণ করে যেখানে খরচ কমানো বা অপ্টিমাইজ করা যেতে পারে যা লাভের দিকে পরিচালিত করে।

    Kazi Takbir Hossain
    Batch 221
    Green university of bangladesh

    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    Most Popular

    Recent Comments