ডেমিন ফেব্রিক নিয়ে কিছু কথা

1
1118

আধুনিক সভ্যতার অন্যতম উপাদান পোশাক। মানুকে সুন্দর করে তুলতে পোশাকের কোনো জুরি নেই।পোশাকের মাধ্যমে মানুষের সৌন্দর্য ফুটে উঠে। পোশাক মানুষের ২য় মৌলিক চাহিদা। তাই পোশাকের অবদানকে কোনো ভাবেই অস্বীকার করা যায় না।

আধুনিক সমাজে পোশাকই মানুষের রুচিবোধ ও আভিজাত্যের পরিচয় দেয়।আর বর্তমানে মানুষ তাই নিজের পোশাক সম্পর্কে আরো বেশি সচেতন। আর তাই ডেমিন  বা জিন্স পোশাকে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

ডেমিন বা জিন্স:

১০০% কটন টুইল বা স্টেচ দিয়ে তৈরি ডেমিন ফেব্রিক।কটনের মজবুত ওয়ার্ক স্ফেড টুইল টেক্সটাইল দিয়ে দুই বা ততোধিক ওয়ার্ক সুতার দিয়ে ডেমন ফেব্রিক তৈরি।ডেমিন হচ্ছে ওভেন ফেব্রিক।যেখানে কালার বা রং বেশি প্রাধান্য পায়।ডেমিন ফেব্রিক  বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নীল হয় তবে বর্তমানে বিভিন্ন রঙের হয়ে থাকে। ডেমিন ফেব্রিকের সুতার বুনন কৌশল আলাদা অন্য ফেব্রিকের চেয়ে।এর বুনন কৌশল আলাদা।ফেব্রিক বা কাপড় বুননের ক্ষেত্র দুই ধরনের কৌশল দেখা যায়। কাপড়ের দৈর্ঘ্য বরাবর সুতাকে বলা হয় ওয়ার্প সুতা আর আড়াআড়ি বরাবর সুতাকে বলা হয় ওয়েফট সুতা।এর বুনন কৌশল কোনাকুনি বা আরাআরি ধরনের।

ডেমিনের ইতিহাস:

ডেমিন সতেরো শতকের দিকে ডেমিনের আত্নপ্রকাশ ঘটে।অতীত থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত ডেমিনরে চাহিদা কমেনি। ১৯৬৯ সালে “আমেরিকান ফেব্রিক ” নামক ম্যাগাজিনের একজন লেখক লিখেন “পৃথিবীর আদি ফেব্রিক বা কাপড় সমূহের মধ্যে ডেমিন চিরনিরন্তন”। ৮০ দশকে ডেমিন বাজারে আসে এবং স্থায়ী ভাবে জায়গা করে নেয়।যা অতীত থেকে বর্তমান পর্যন্ত আছে।

ডেমিনের প্রকারভেদ:

1. Dry Demin
2. Selvage Demin
3. Poly Demin
4. Ramie cotton Demin
5. Stretch Demin

বিশ্বের শেরা কিছু ডেমিন ব্যান্ড:

1. G-star raw
2. Lucky
3. Diesel
4. 7 For all Mankind
5. Wrangler
6. True religion

বাংলাদেশে বর্তমানে ডেমিনের অবস্থান:

বিশ্বব্যাপি ডেমিনের চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। পোশাকের শিল্পে বাংলাদেশ অবস্থান ২য়।দেশের জিডিপি দিন দিন যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে তেমনি দেশের কর্মসংস্থান ও বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশ বর্তমানে ৩০ টি ডেনিম শিল্প করখানা রয়েছে। যার মোট বিনিযোগ  ৯০ কোটি  মার্কিন ডলার। প্রতিবছর ডেনিম কাপড় উৎপাদনে দেশের সক্ষমতা ৩৬ কোটি গজ। যেখানে চাহিদা রয়েছে প্রায় ৭২ কোটি গজ।  আন্তর্জাতিক বাজার বর্তমানে ৫৬২ কোটি ডলারের। ২০২১ সাল নাগাদ তা ৭০০ কোটি ডলার ছাড়াতে পারে।ডেনিম পণ্য তৈরির কারখানা রয়েছে ৫৩১টি।

দেশের অন্যতম দশটি ডেমিন কারখানা:

1. Envoy Textiles Ltd.
2. Ha-Meem Demin Mills Ltd
3. Pacific jeans Ltd
4. Partex Demin Ltd.
5. Baximico Demin Ltd
6. Nassa -Taipei Demin Ltd
7. Chittagong Demin mills Ltd

ডেমিনের বৈশিষ্ট্য:

১. ডেমিন খুব শক্তিশালী ফেব্রিক।
২. টেকসই ও স্থায়ী।
৩. ১০০% কটন সুতা দিয়ে তৈরি।
৪. ডেমিন ফেব্রিকে সহজে ক্রিজ পরে না।
৫. ডেমিন ওভেন ফেব্রিক।
৬. ডেমিন পরিধানের সময় সুরক্ষা দেয়।

Writer:

Nafiza Nizami
BGMEA University of Fashion &Technology (BUFT)
Department of Textile Engineering

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here