নারীর হাত ধরেই পোশাকশিল্পের উন্নয়ন

0
65
নারীর হাত ধরেই পোশাকশিল্পের উন্নয়ন

বর্তমানে তৈরি পোশাকশিল্প খাতে ৪ দশমিক ৫ মিলিয়ন লোক কাজ করছেন। তার মধ্যে ৮০ শতাংশই নারী। নারীদের হাত ধরেই এগিয়ে যাচ্ছে পোশাকশিল্প খাত। দেশের উন্নয়নে এই অবদান অনেক বেশি লক্ষ্যযোগ্য ও আলোকিত। পরিশ্রম করার মানসিকতা, কাজের দক্ষতা, যোগাযোগ আত্মবিশ্বাস এই খাতের নারীদের আরও এগিয়ে নেবে।বাংলাদেশ ব্যুরো অব স্ট্যাটিটিকসের (বিবিএস) সমীক্ষায় দেখা গেছে, দেশের সাত হাজার ৭৫০টি গার্মেন্টসের ব্যবস্থাপনা ও প্রসাশনিক পদে এক লাখ ৩১ হাজার সদস্য রয়েছে। তার মধ্যে ১৫ হাজার ২৫৯টি পদে রয়েছেন নারীরা, যা সংখ্যায় এখনো অপ্রতুল। পোশাকশিল্প খাতের গুরুত্বপূর্ণ ও দায়িত্বশীল পদে যাতে নারীরা এগিয়ে আসতে পারে।

গত ৮ মার্চ বিশ্ব নারী দিবসে রেডিমেড গার্মেন্টস (আরএমজি) খাতে অসামান্য অবদানের জন্য ছয়জন নারী নেত্রীকে স্বীকৃতি দিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২২ উদযাপন করেছে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) ফোরাম পরিষদ।এতে বলা হয়, যেসব নারীরা অদম্য মনোবল নিয়ে নিজের প্রতিটি পদক্ষেপের মাধ্যমে নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছেন। তাদের নিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করেছে বিজিএমইএ ফোরাম পর্ষদ। পাশাপাশি দৈনন্দিন জীবনে রেডিমেড গার্মেন্টস (আরএমজি) শিল্পে প্রতিবন্ধকতার সীমানা অতিক্রম করে আসা নারীদের জন্য কৃতজ্ঞতার প্রতীক হিসেবে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

ফোরাম বিজিএমইএ লিডারশিপ- ২০২৩ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে তৈরি পোশাক খাতে অসামান্য অবদানের জন্য ছয়জন নারী নেত্রীকে স্বীকৃতি দিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০২২ উদযাপন করা হয়।ওয়েবইনারের মডারেটর ডা. ফওজিয়া মোসলেম বলেন, নারী আজকে অত্যন্ত জাগরিত একটি শক্তি।

এ জাগরণকে কাজে লাগিয়ে আমাদের আগামী দিনের রূপরেখা তৈরি করতে হবে। সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে তরুণ প্রজন্মকে কাজ করতে হবে। কিছু পরিবর্তন হচ্ছে, তবে তার কার্যকারিতা ও স্থায়ীত্ব নিশ্চিতের জন্য আইনি কাঠামো তৈরি করতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক ভিত্তি শক্ত করতে হবে ও সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিহত করতে হবে।

অনিমা আলম
বস্ত্র পরিচ্ছদ ও বয়ন শিল্প
গভ্ট কলেজ অব এপ্লাইড হিউম্যান সায়েন্স

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here