Home Fabric “পদ্ম রেশম, পৃথিবীর অন্যতম বিরল এবং ব্যয়বহুল কাপড়”

“পদ্ম রেশম, পৃথিবীর অন্যতম বিরল এবং ব্যয়বহুল কাপড়”

মানুষ তার সৃষ্টিকাল থেকে পরিবেশের সৌন্দর্যের মোহে আকৃষ্ট। প্রকৃতির অনেক উপাদান থেকে টেক্সটাইল সেক্টরে বহু ফাইবার তৈরি হয়েছে। তেমনি পদ্ম ফুল হচ্ছে এক অনন্য সংযোজন । “গোবরে পদ্ম ফুল ” যা শুনতে কটু লাগলেও টেক্সটাইল সেক্টরে আজ পদ্ম ফুলের ব্যবহার বাস্তব। পদ্ম রেশম বিশ্বের অন্যতম বিরল ফ্যাব্রিক যা প্রধানত ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, মায়ানমার জুড়েই এর বিস্তার। মায়ানমারের পদ্ম রেশম উৎপন্ন হয় নির্দিষ্ট আকৃতির, সুঘ্রানযুক্ত গোলাপি পদ্ম থেকে। যাকে স্থানীয় ভাষায় Pandonma Kya বলা হয় । এই রেশম প্রস্তুতির জটিলতা এবং অনেক পরিশ্রম,এর দরকার হও্যার জন্য পদ্ম রেশম পৃথিবীর অন্যতম দামী কাপড়।

ইতিহাসঃ মায়ানমারের শান রাজ্যের ইনলে হ্রদে লোটাস সিল্ক বা পদ্ম রেশম বুণনের উৎপত্তি। ১৯০০-এর দশকের শুরুতে কায়িংখান গ্রামে Intha গোত্রের “Sa Oo” নামে এক মহিলা পদ্ম রেশম আবিষ্কার করেন। তিনি প্রথমে পদ্মতন্তু ব্যবহার করে বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর পোশাক তৈরি করেন, যাকে কায়া থিংগান (kya thingan) বলা হয়। যা স্থানীয় মঠের মঠাধ্যক্ষকে উৎসর্গ করার জন্য এবং ফাউং তাও ও প্যগোডার প্রধান Buddha এর মুর্তির জন্য একই রক পোশাক তৈরি করে দিয়েছিলেন।

এই পদ্ম রেশমের বুনন Sa Oo এর মৃত্যুর পর বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিলো কিন্তু পরে তার আত্মীয় Un Yee এবং  Ohn Kyi এটিকে ফিরিয়ে আনে এবং আধুনিকায়ন করে। ২০১৭ সাথে হ্যানই এর একজন তাতী এই রেশম বুনন প্রক্রিয়াকে ভিয়েতনামে পরিচয় করায়।

প্রক্রিয়াঃ প্রথমে তাজা পদ্ম গাছের কান্ড সংগ্রহ করা হলে ২৪ ঘন্টা কান্ড সূর্যের আলোতে শুকাতে হয়। খেয়াল রাখতে হয় যেনো খুব বেশী বা কম শুকানো না হয়। শুকানো হয়ে গেলে তিন বা চারটি কান্ড একসাথে নেওয়া হয় এবং ছুরি দ্বারা কান্ডগুলির উপরিভাগ কাটা হয় এবং মোচড় দিয়ে কান্ডভাগকে ধীরে আলাদা করা হয়, তখন কান্ড গুলির ভিতর থেকে তন্তু গুলো বের হয়ে আসে। তন্তুগুলি খুবই পাতলা হয়ে থাকে এবং একাধিক তন্তু একসাথে বের হয়ে আসে। বের হওয়া ফাইবারগুলি বাঁশের স্পিনিং ফ্রেমে  রেখে এবং ওয়ারপিংয়ের জন্য থ্রেড উইন্ডার্সে স্থানান্তর করে সুতা তৈরি করা হয় । খুব যত্ন সহকারে কাজ করা হয় যেন জটলা না পাকায় , এই সুতাগুলি প্রায় ৪০ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয় । ঐতিহ্যবাহী কম্বোডিয়ান লুমে পদ্ম রেশমের কাপড় করা হয়। উইভিং প্রক্রিয়ার সময় ফাইবারগুলো শীতল রাখার জন্য সুতাকে ধারাবাহিকভাবে পানি দিয়ে ভিজানো হয়, যাতে করে সুতাগুলি না ভেঙে যায়। বুননকৃত কাপড় সাধারণ রেশম এবং লিন্যান কাপড়ের সাথে সাদৃশ্যপুর্ন। এই রেশম সুতা প্রথমের দিকে ধুসর রং এর হয় পরে তা বিশেষ ধরনের প্রক্রিয়াজাতের এর মাধ্যমে মার্জিত রঙ এ আনা হয় । এর পর প্রাহকের পছন্দমতে প্রাকৃতিক রঞ্জক দিয়ে সুতার রং পরিবর্তন করা হয়। পদ্ম রেশম সুতা স্পিনিং করা খুব সূক্ষ্ম ও কঠিন কাজ, কারণ তন্তু সহজেই ভেঙে যায় । এর জন্য পাকা হাত এবং অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। ২০ জন কর্মী সারা মাসে ১০-২০ টি স্কার্ফ তৈরি করে যা প্রতি স্কার্ফ ২০০$ পর্যন্ত বিক্রয় হয়। এই কাপড় তৈরির জটিলতা এবং পরিশ্রমের জন্যই এটি পৃথিবীর অন্যতম দামী কাপড়।

ব্যাবহারঃ পদ্ম রেশম এর পোশাক প্রথমে বুদ্ধ মুর্তি বা বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের জন্য একটি উপহার বা অঞ্জলি হিসাবে বুণন করা হত, কিন্তু এখন স্কার্ফ এবং টুপি সহ বিভিন্ন ধরণের পোশাকের জন্যও ব্যবহৃত হয়। Loro Piana, একটি বিলাসবহুল পোশাক কোম্পানি, ২০১০ সাল থেকে জ্যাকেট এবং অন্যান্য পোশাক পণ্য উৎপাদনের জন্য বার্মিজ পদ্ম সিল্ক আমদানি করেছে।

সূত্রঃ গুগল, ইউটিউব, উইকিপিডিয়া ইত্যাদি।

লেখক ঃ
1. Zobair Hasan Moon
2. Saiful Islam Farhan
3. Asif Hawlader Sawon

Department of Textile Engineering
Southeast University

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author

error: Content is protected !! Don\\\\\\\\\\\\\\\'t Try to Copy Paste.