Home Business পোড়াদহ কাপড়ের হাট, কুষ্টিয়া

পোড়াদহ কাপড়ের হাট, কুষ্টিয়া

বাংলাদেশ বস্ত্র বয়ন বা কাপড় বোনার জন্য সুবিদিত। বিশ্বব্যাপী এর সুনাম রয়েছে কয়েক হাজার বছর ধরে। প্রতিটি হাটের রয়েছে জন্মইতিহাস। বাণিজ্যিক ক্রিয়াকর্মে রয়েছে নিজস্ব রীতিনীতি, সংস্কৃতি। তেমনি উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কাপড়ের বাজার পোড়াদহ হাট, কুষ্টিয়া।

প্রায় ৯০ বছরের পুরোনো কুষ্টিয়ার পোড়াদহ কাপড়ের হাট। উনিশ শতকের প্রথমদিকে তৎকালীন সুতা ব্যবসায়ী নুরুদ্দীন, হাসেম আলী সহ কয়েকজন মিলে এ হাট প্রতিষ্ঠা করেন। জেলার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ রেলওয়ে জংশনের সঙ্গে প্রায় ১৫ বিঘা জমির উপর ছোট ছোট ৬৩৮টি দোকান রয়েছে এই হাটে। আশেপাশে ব্যক্তিমালিকানায় আরো ৩০ বিঘা জমির এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে এই কাপড়ের হাট। সেখানে দোকানের সংখ্যা ৫৮০টি

পাইকারি ও খুচরা বেচাকেনার জন্য জনপ্রিয় কুষ্টিয়ার পোড়াদহ কাপড়ের হাট। প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা এখানে আসেন কাপড় কিনতে। আশেপাশে জেলা গুলো থেকে লোকজন এসে কেনাকাটা করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। এখানে পাওয়া যায় গজ-কাপড়, থান-কাপড়, পাঞ্জাবির কাপড়, থ্রিপিস, শাড়ি, লুঙ্গি, সুতির কাপড়, যাকাতের কাপড়, প্যান্ট, শার্টের পিস, কোর্ট, মশারি, রেডিমেট পোশাক ইত্যাদি।
প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দোকানগুলোর বেচাবিক্রি চলে। সপ্তাহে বৃহস্পতি শুক্র ও শনিবার এ কাপড়ের হাট বসে থাকে। অন্যান্য দিনেও বসে। এই হাটে প্রায় ২০০০টি দোকান বসে। ঈদ উপলক্ষে এখানে গভীর রাত পর্যন্ত বেচাকেনা চলে। দামে সাশ্রয়ী হওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে কেনাকাটা করতে চলে আসেন অনেকেই পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলা থেকে পোড়াদহে।

এই হাটে ৯৫ ভাগ পণ্য দেশি। ৫ ভাগ থাকে বিদেশি। প্রতি হাটবারে কাপড়ের হাটে ৩৫ থেকে ৪০ কোটি টাকা বেচাকেনা হয়। এবং ব্যক্তিমালিকানা দোকানগুলোয় ৬০ কোটি টাকা বেচা বিক্রি হয়ে থাকে। এই কাপড়ের হাট থেকে প্রতিবছর গড়ে সরকারের রাজস্বের পরিমাণ ৪৮ লাখ টাকা।

কুষ্টিয়ার পোড়াদহ হাটে নিরাপত্তা বাহিনী পুলিশের উচ্চমহলের কর্মকর্তাদের মোতায়ন করা থাকে। পোড়াদহে পুলিশের টহল জোরদার প্রক্রিয়ায় দেয়া হয়। সেইসঙ্গে গোয়েন্দা তৎপরতা রয়েছে। পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা যখন সঙ্গে করে ক্যাশ নিয়ে আসেন তাদেরকে বিশেষ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়। যার ফলে ক্রেতা-বিক্রেতারা স্বাচ্ছন্দে নির্ভয়ে কেনাকাটা করে গন্তব্যে ফিরে যেতে পারেন।

Raizul Kabir Novo
Department of Textile Engineering
BGMEA University of Fashion & Technology(BUFT)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author