Home Textile Manufacturing বাংলাদেশী টেক্সটাইল ও আরএমজি শিল্পে বিদেশীদের আধিপত্য

বাংলাদেশী টেক্সটাইল ও আরএমজি শিল্পে বিদেশীদের আধিপত্য

কোনও দেশে বিদেশী ইঞ্জিনিয়ার থাকা কোন অপরাধ নয়। একটি দেশ বহু কারণে এই বিদেশী ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়োগ করে থাকে যার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য হ’ল দেশকে আরও সমৃদ্ধ করা এবং উন্নত দেশগুলির সাথে নিজেকে তুলনা করা। ১৯৮০ এর দশকে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প শুরু হওয়ার সময় আমাদের অনেক বিদেশি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারস ছিল।তবে বর্তমানেও আমরা প্রচুর বিদেশী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়োগ করছি যেখানে প্রচুর স্থানীয় টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়াররা সঠিক অবস্থানের অভাবে ভুগছেন। গত অর্থবছরেও আমরা বিদেশী পেশাদারদের নিয়োগের জন্য আমাদের রপতানি্র মূল্যের প্রায় ২৬.৩১% ব্যয় করেছি।ফলস্বরূপ, প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ রেমিট্যান্স বিদেশে যাচ্ছে। আমাদের আজকের এই আলোচ্য প্রতিবেদনটি  বিদেশী রেমিট্যান্সের বিশদ সহ বাংলাদেশী আরএমজি শিল্পগুলির বর্তমান দৃশ্যের উপর আলোকপাত করার চেষ্টা করবে। শুধু তাই নয় ,বাংলাদেশি আরএমজি শিল্পগুলির স্থায়িত্বের ক্ষেত্রে বাংলাদেশী প্রযুক্তিগত ব্যক্তির চাহিদা নিশ্চিত করার চেষ্টা করবে। 

উচ্চ স্তরে কর্মরত বিদেশী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারসদের সংখ্যা (এজিএম, জিএম, এইচআর, আরএনডি ইত্যাদি)-

১. BIDA র  তথ্য মতে, বিগত পাঁচ বছরে এটি বাণিজ্যিক ও শিল্প খাতের ১৩,১৪৭ জন  কর্মচারীকে ওয়ার্ক পারমিট সরবরাহ করেছে। বিআইডিএ একই সময়ে ১৭.৩৮৯ জন  কর্মচারীর ওয়ার্ক পারমিটও নবায়ন করেছে। তবে বর্তমানে দেশে কয়জন বিদেশী কর্মরত রয়েছেন সে সম্পর্কে পরিষ্কার তথ্য পাওয়া যায়নি।

সরকারী সংস্থাগুলির বাংলাদেশে বিদেশি নাগরিকের সংখ্যা সম্পর্কে কোন পরিসংখ্যান নেই। বিভিন্ন এনজিও অনুমান করেছে যে এই সংখ্যাটি প্রায় অর্ধ মিলিয়ন হতে পারে এবং বার্ষিক রেমিট্যান্স হিসাবে দেশের বাইরে $ 5.0 বিলিয়ন প্রবাহিত হয়। বেসরকারী খাত সূত্রে জানা গেছে, বেশ কয়েকটি বিদেশী পেশাদার বাংলাদেশের পোশাক, টেক্সটাইল, বাড়ি কেনার কাজে নিযুক্ত এবং তাদের বেশিরভাগই বিনা অনুমতিতে কাজ করছেন।বাংলাদেশ অ্যাপ্লায়ারাল ইন্ডাস্ট্রির দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, প্রায় পাঁচ লক্ষ বিদেশি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারস বাংলাদেশে কর্মরত এবং এর মধ্যে পাঁচ ভাগের এক ভাগ বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ রপতানিতে নিবন্ধিত রয়েছে।৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ এ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সংসদে জানিয়েছিলেন যে মোট ৮৫,৮৮৬ জন  বিদেশি নাগরিক বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে কাজ করছেন, যাদের মধ্যে, ৬৭,৮৫৩ বিদেশি ব্যবসায়ী ছিলেন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের মালিক।

২. বিদেশি  টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারসদের স্যালারি স্ট্রাকচার-

প্রায় ৪৫,০০০ বিদেশী নাগরিক বর্তমানে বাংলাদেশে কাজ করছেন, বেশিরভাগ ভারত, চীন, শ্রীলঙ্কা এবং ইউরোপীয় এবং আফ্রিকান কিছু দেশ থেকে আগত। বিদেশী কর্মচারীরা প্রচুর বেতন-ভাতা পাওয়ায় তারা উচ্চ কর্মসংস্থানের সুবিধা পান বলে বাংলাদেশে কাজ করছেন। বিদেশী কর্মচারীরা সাধারণত বিশেষায়িত ক্ষেত্র যেমন উত্পাদন, পোশাক বিক্রয় ও মান নিয়ন্ত্রণে কাজ করেন। বিদেশী কর্মচারীদের বেতন পরিসর বিডিটি প্রায় ৩-১০ লক্ষ টাকা [তার যোগ্যতার উপর নির্ভর করে]। ইংরেজিতে দক্ষতা এবং কারিগরি জ্ঞান থাকার কারণে বাংলাদেশ টেক্সটাইল সংস্থাকে উচ্চতর পারিশ্রমিক দিয়ে বিদেশী কর্মী নিয়োগ করতে হয়। সংক্ষেপে, বিদেশী কর্মচারীর বেতন কাঠামো তার দক্ষতা এবং কাজের দক্ষতার উপর নির্ভর করে।  তবে দিনকে দিন পরিবর্তন হচ্ছে, অনেক টেক্সটাইল শিল্প রয়েছে যারা সুদর্শন কর্মসংস্থানের সুবিধা দিয়ে বর্তমানে স্থানীয় কর্মচারী নিয়োগ দিচ্ছেন।

৩. বিদেশী কর্মচারী বাছাই করার কারণ-

আরএমজি খাতটিতে বর্তমানে বিদেশী কর্মীদের সবচেয়ে বড় আবস্থান  কারণ সর্বশেষতম ফ্যাশন প্রযুক্তি এবং স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রপাতি চালিয়ে যাওয়ার জন্য অত্যন্ত দক্ষ ব্যক্তিদের প্রয়োজন। এ সিদ্ধান্তে পৌঁছানো ন্যায়সঙ্গত যে, দক্ষ শ্রমিকদের মধ্যে মারাত্মক অভাব রয়েছে যা বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি খাতে দক্ষ জনশক্তির চাহিদা ও সরবরাহে মারাত্মক ভারসাম্যহীনতা উপস্থাপন করে।ইংরেজী দক্ষতা বাংলাদেশের অনেক চাকরিপ্রার্থীর কাছে একটি চূড়ান্ত চ্যালেঞ্জ এবং বিদেশী কর্মচারী বাছাই করার জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ।

সবকিছু মিলিয়ে বলা বাহুল্য যে, বাংলাদেশের  টেক্সটাইল ও আরএমজি শিল্পে বিদেশীদের আধিপত্য ব্যাপক। 

Written by:

Name – Nanjib Nawar Khan Nid
BGMEA University Of Fashion & Technology
Batch -201  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author