রপ্তানি আয়ের এর এক নতুন দিগন্তে পৌঁছেছে বাংলাদেশ।

0
219

শিল্পায়ন একটি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের একটি প্রধান কারণ। শিল্পায়ন উন্নয়নশীল দেশগুলোর আর্থিক কাঠামো পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশের বস্ত্র শিল্পের বয়স ৫০০ বছরেরও বেশি। এটি তার সমৃদ্ধ ইতিহাস সহ প্রাচীনতম এবং সবচেয়ে সফল শিল্পগুলির মধ্যে একটি। তাছাড়া, সাম্প্রতিক বছরগুলিতে সুতা এবং কাপড়ের উৎপাদনে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে।বর্তমানে, বাংলাদেশ বিশ্বের বৃহত্তম পোশাক উৎপাদনকারী হিসাবে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে যার $২০ বিলিয়ন ব্যবসা রয়েছে যার ৮০%পণ্য রপ্তানি করে আয় করা হয়।বাংলাদেশে বস্ত্র শিল্পের বিকাশের প্রধান কারণ হল পরিশ্রমী শ্রমশক্তি। টার্গেট পূরণ করতে তারা আরও বেশি কর্মঘণ্টা রেখেছিল। তাই সাম্প্রতিক সময়ে দেশের মাথাপিছু আয় ও মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়েছে। দ্বিতীয়ত, দেশটি তৈরি পোশাক বিভাগে আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলির সাথে বাণিজ্য করার একটি সুবিধাজনক সুযোগ অর্জন করেছে।এই সুযোগগুলো সরকারি নীতির দ্বারা সমর্থিত ছিল যা বাংলাদেশে টেক্সটাইলের বৃদ্ধিকে টিকিয়ে রেখেছে। উদারপন্থী সরকারের নীতিগুলি বিদেশী দেশগুলি থেকে বিনিয়োগকে উৎসাহিত করেছিল। বাংলাদেশের পোশাক শিল্প আজ বিশ্ববাজারে সুপরিচিত এবং একটি প্রধান স্থান দখল করে আছে। দেশের টেক্সটাইল শিল্পে বিশেষায়িত টেক্সটাইল পণ্য, নিটওয়্যার এবং বোনা পোশাক রয়েছে। এসব পণ্য দেশের রপ্তানি আয় দখলে শীর্ষে।টেক্সটাইল ও গার্মেন্টস শিল্পে বাংলাদেশের একটি চমৎকার ভবিষ্যত রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে জাতীয় আয়ের একটি বড় অংশ টেক্সটাইল এবং তৈরি পোশাক রপ্তানি থেকে প্রাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রা থেকে অর্জিত হয়।পোশাক উৎপাদনে বাংলাদেশ চীনের পরেই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। পশ্চিমা ফাস্ট ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক দেশ। পশ্চিমা ব্র্যান্ডের রপ্তানি চুক্তির ষাট শতাংশ ইউরোপীয় ক্রেতাদের সাথে এবং প্রায় ত্রিশ শতাংশ আমেরিকান ক্রেতাদের সাথে এবং দশ শতাংশ অন্যদের সাথে। টেক্সটাইল কারখানার মাত্র ৫% বিদেশী বিনিয়োগকারীদের মালিকানাধীন, বেশিরভাগ উৎপাদন স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে আরএমজি শিল্প ২৮.১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে, যা রপ্তানি থেকে মোট রপ্তানি আয়ের ৮০.৭%এবং জিডিপির ১২.৩৬%ছিল l সম্প্রতি প্রকাশিত রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ের জন্য বাংলাদেশের তৈরি পোশাক (আরএমজি) রপ্তানি আয় করেছে $৩৫.৩৬ বিলিয়ন। ২০২১-২০২২ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে, আরএমজি রপ্তানি আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩৫.৯৮ বৃদ্ধির রেকর্ড করে lশুধুমাত্র এপ্রিলেই, দেশের আরএমজি রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৫৬.৩১ এবং $৩.৯৩ বিলিয়নে পৌঁছেছে, যা ২০২১ সালের এপ্রিল মাসে $২.৫২ বিলিয়ন ছিল।

মোঃ সাদিক হোসেন
ডিপার্টমেন্ট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং
ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here