Home Life Style & Fashion সিনড্রেলার গল্প

সিনড্রেলার গল্প

আজকের যুগের ছেলেমেয়েরা সিনড্রেলার গল্প জানেনা, তা কি হয় নাকি? সিনড্রেলার সেই রাজকীয় Ball Gown আর Glass Slipper এর মাহাত্ম্য এখনও অন্য যেকোন রূপকথার গল্পকে টপকে যাবে। তো কেন বলছি সিনড্রেলার কথা?

যারা ফ্যাশন জগতের খবর রাখেন, তারা হয়তো জানেন, আমেরিকায় প্রতি বছর একটি বিখ্যাত ফ্যাশন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় যা Met Gala নামে বহুল সমাদৃত। নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত Metropolitan Institute of Art এর একটি শাখা, Costume Institute, এই জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে বড় বড় তারকারা নিজেদের আকর্ষণীয় ও ‘out of the box’ চিন্তাধারার পোশাক পড়ে Fund-raising এর কাজে সাহায্য করেন। গত বছর Met Gala তে আমেরিকান অভিনেত্রী Zendaya হাজির হন তার বিখ্যাত ও নজরকাড়া ‘সিনড্রেলা গাউন’ নিয়ে!

নামী প্রিমিয়ার ফ্যাশন ব্র্যান্ড Tommy Hilfiger এর নেতৃত্বে তৈরি হয় এই ‘আলোচিত’ ও ‘আলোকিত’ Ball Gown। তো কি মনে হয়- গাউনটির চমৎকার উপস্থাপন, puff sleeve, corset structure আর নীলাভ আলোই ফ্যাশন ও ফ্যাশনের বাইরের মানুষদের নজর কেড়েছে? মোটেও না! এই ড্রেস সম্পর্কে Tommy Hilfiger এর পক্ষ থেকে বলা হয়- “ এটি একটি ‘animatronic’ (robot, computer, electronics এর মিশেল!) স্ফটিক-ধূসর বর্ণের Evening Gown যাতে আক্ষরিক অর্থেই ড্রেসটির দৃশ্যমান ও শারীরিক রূপান্তর নাটকীয় উপস্থাপন সক্ষম হয়েছে।“ ড্রেসটা নিয়ে বরং একটু সহজ ব্যাখ্যায় আসি।

Zendaya যখন প্রথম গাউনটি পড়ে Met Gala’র গালিচায় আসেন, তখন দেখে মনে হয় ড্রেসটা ধূসর ও সাদামাটা। কিন্তু কিছু জাদুর ছোঁয়ায় চোখের পলকে এই ড্রেস সিনড্রেলার সেই বিখ্যাত নীল ও উজ্জ্বল Ball Gown এ পরিণত হয়!

তো এই High Fashion ও Technology কে এক করার পিছনে কী সেই জাদুর ছোঁয়া? কী সেই গোপন রহস্য? বলা হয়ে থাকে এই পুরো গারমেন্ট তৈরির পেছনে আছে ৮ জন দক্ষ মানুষের ৩ মাসের পরিশ্রম। ১১ পাউন্ড ওজনের(!) এই ড্রেসের পুরো স্কার্ট জুড়ে আছে ২০টা কার্বন ফাইবারের চিকন রড; কার্বন ফাইবারের এই রডগুলায় আছে যথেষ্ট পরিমাণ surface area এবং বিদ্যুৎ পরিবাহী ধর্ম। এই রডগুলোর সাথে যুক্ত করা হয় ৫টি battery pack যা প্রায় আধা কিলোওয়াট পাওয়ার উৎপাদনে সক্ষম। ফলে ৪০মিটার LED বাতি যখন পুরো ইলেকট্রিকাল সিস্টেমে জুড়ে দেওয়া হয়, তখন ড্রেসটা চোখের পলকে সিনড্রেলা গাউনে পরিণত হওয়া আর অবাক করা বিষয় নয়। আরো কিছু মেকানিকাল ফাংশন ও কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ের বদৌলতে স্বাভাবিকভাবেই ড্রেস নিজেই তখন হয়ে যায় বাস্তব এক রূপকথা।

তবে কেন আজ সিনড্রেলার গল্পের কথাই বললাম। আসলে অন্য দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বলতে গেলে হয়তো অদূর ভবিষ্যতে এই ধরনের আলোক নিক্ষিপ্ত, পরিবর্তনশীল কাঠামোর টেক্সটাইল নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে। কার্বন ফাইবার এর strength, electric conductivity ও ড্রেস কাঠামো বদলের ক্ষেত্রে ফিজিক্সের প্রয়োগ হয়তো সামান্য নমুনা মাত্র যা হতে পারে agrotextiles, medical textiles কে পাল্টিয়ে দেওয়ার যুগান্তকারী সুযোগ। একটু গভীর ভাবে চিন্তা করলেই বুঝা যাবে কত আশ্চর্য এই ম্যাজিক!

লেখিকা পরিচিতি:

নাম: তাসফিয়া জামান
প্রতিষ্ঠান: বুটেক্স

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author