Tuesday, May 28, 2024
More
    HomeCottonইয়ার্ণ কি? ইয়ার্ণ কাউন্ট বের করার উপায়

    ইয়ার্ণ কি? ইয়ার্ণ কাউন্ট বের করার উপায়

    ইয়ার্ণই শক্তি, ইয়ার্ণই বল

    এই মূল মন্ত্রে উজ্জ্বীবিত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ইয়ার্ণ ম্যানুফ্যাকচারিং ডিপার্টমেন্টর সকলকে সশ্রদ্ধ সালাম জানিয়ে শুরু করছি আজকের এই লিখাটি।

    প্রথমেই প্রশ্ন আসবে সুতা বা ইয়ার্ণ কি?
    মূলত আমরা তুলো থেকে স্পিনিং প্রসেসের মাধ্যমে যা পাই তাই সুতা। কিন্তু বিস্তারিত ভাবে বলতে গেলে এটি আরো ব্যাপক,
    যেমন নিদিষ্ট দৈর্ঘ্য প্রস্থের অনুপাত থাকতে হবে। টুইস্টিং এভেলিটি থাকতে হবে।।

    সুতা বিভিন্ন প্রকার এর হতে পারে। পলিস্টার সুতা,নাইলন সুতা,কটন সুতা,ইত্যাদি।

    তো এখন আসা যাক কি ভাবে ইয়ার্ণ কাউন্ট বের করবো? বা ইয়ার্ণ কাউন্ট কি?

    ইয়ার্ন কাউন্টঃ-
    কাউন্ট হলো ইয়ার্নের একক ভরের দৈর্ঘ্য বা একক দৈর্ঘ্যের ভরকে বুঝায়। অর্থাৎ ইয়ার্ন কাউন্ট দ্বারা ইয়ার্ন কতটুকু ফাইনার বা কোরসার অর্থাৎ মোটা বা চিকন সেটা নির্ণয় করা যায়।

    কাউন্ট এর প্রকারভেদঃ- কাউন্ট দুই প্রকার।
    ১। ইনডিরেক্ট কাউন্ট(indirect count)
    ২। ডিরেক্ট কাউন্ট(direct Count)

    ইনডিরেক্ট কাউন্টঃ-

    ইয়ার্নের একক ভরের দৈর্ঘ্যকে ইনডিরেক্ট কাউন্ট বলে। অর্থাৎ ইয়ার্নের কাউন্ট যত বেশি হবে ইয়ার্ন তত চিকন হবে। যেমন- ইংলিশ কাউন্ট(Ne) মেট্রিক কাউন্ট(Nm), ওরস্টেড কাউন্ট(Nw) ইত্যাদি।

    ইনডিরেক্ট কাউন্ট (N)=​(Lw)/(lW)
    এখানে,
    N= মোট ইয়ার্ন কাউন্ট
    L= শ্যাম্পল লেন্থ(sample length)
    W= শ্যাম্পল ওয়েট(sample Waight)
    l= ইউনিক লেন্থ
    w= ইউনিক ওয়েট

    ইংলিশ কাউন্ট(Ne) :- ৮৪০ গজ ইয়ার্নের যতগুলো হ্যাঙ্ক এর ভর ১ পাউন্ড হয়।

    যেমন- 32 Ne বলতে বুঝায় যে, ৮৪০ গজ ইয়ার্নের 32 হ্যাঙ্ক এর ভর ১ পাউন্ড(lbs)হয়।

    মেট্রিক কাউন্ট​(​Nm​):-​১০০০ মিটার ইয়ার্নের যতগুলো হ্যাঙ্ক এর ভর ১ কেজি হয়।

    যেমন-৩২ Nm বলতে বুঝায় যে,১০০০মিটার ইয়ার্নের ৩২ হ্যাঙ্ক এর ভর ১ কেজি(kg) হয়।

    ওরস্টেড কাউন্ট(Nw):- ৫৬০ গজ ইয়ার্নের যতগুলো হ্যাঙ্ক এর ভর ১ পাউন্ড হয়।

    ডিরেক্ট কাউন্টঃ-
    ইয়ার্নের একক দৈর্ঘ্যের ভরকে ডিরেক্ট কাউন্ট বলে। অর্থাৎ ইয়ার্নের কাউন্ট যত বেশি হবে ইয়ার্ন তত মোটা হবে। যেমন- টেক্স, ডেনিয়ার, ডেসি টেক্স ইত্যাদি।

    ডিরেক্ট কাউন্ট (N)= (lW)/(Lw)
    এখানে,

    N= মোট ইয়ার্ন কাউন্ট
    L= শ্যাম্পল লেন্থ
    W= শ্যাম্পল ওয়েট
    l= ইউনিক লেন্থ
    w= ইউনিক ওয়েট

    টেক্স(Tex):- ১০০০ মিটার ইয়ার্নের ভর যত গ্রাম।
    যেমন- ৪০ টেক্স বলতে বুঝায় যে, ১০০০ মিটার ইয়ার্নের ভর ৪০ গ্রাম।

    ডেনিয়ারঃ- ৯০০০ মিটার ইয়ার্নের ভর যত গ্রাম।
    যেমন- ৪০ ডেনিয়ার বলতে বুঝায় যে, ৯০০০ মিটার ইয়ার্নের ভর ৪০ গ্রাম(gm)

    ডেসি টেক্সঃ- ১০,০০০ মিটার ইয়ার্নের ভর যত গ্রাম।

    কাউন্ট এবং GSM এর মধ্যে সম্পর্ক হলো এই যে,
    ইনডিরেক্ট এর ক্ষেত্রে কাউন্ট বেশি হলে ইয়ার্ন ফাইনার হয় তাই ফেব্রিকের জি এস এম কম হয়।
    আর ডিরেক্ট এর ক্ষেত্রে কাউন্ট বেশি হলে ইয়ার্ন কোরসার হয় তাই ফেব্রিকের GSM বেশি হয়।

    Writer :
    Md.Tanvir Hossain Sarker
    Department of Textile Engineering.
    NITER
    E-mail:
    [email protected]

    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    Most Popular

    Recent Comments