গার্মেন্টস শিল্পের সফলতার পিছনে একজন  মার্চেন্টডাইজারের গল্প

0
163
Merchandiser

একজন মার্চেন্টডাইজার গার্মেন্টস শিল্পের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। বাইয়ারের সাথে যোগাযোগ থেকে শুরু করে  বাইয়ারের সাথে নেগোসিয়েশন করে গার্মেন্টস এর অর্ডার গ্রহন এবং এরপর  গার্মেন্টস তৈরি থেকে বাইয়ারের কাছে গার্মেন্টস হস্তান্তর করে পেমেন্ট বুঝে নেয়া পর্যন্ত প্রতিটি কাজের দায়িত্ব খুব ভালোভাবে পালন করে থাকেন একজন মার্চেন্টডাইজার। প্রতিটি  গার্মেন্টস এর সফলতা অনেকটাই নির্ভর করে থাকে একজন মার্চেন্টডাইজারের উপর। সুতরাং সহজ ভাষায় বলা যায়, যিনি গার্মেন্টস অর্ডার গ্রহন করে কস্টিং, কনজাম্পশন, গার্মেন্টস প্রস্তুতকরন এবং শিপমেন্ট পর্যন্ত প্রতিটি কাজ খুব দায়িত্বের সাথে পালন করে থাকেন তাকে বলা হয় গার্মেন্টস মার্চেন্টডাইজার। একটি গার্মেন্টস এ একজন মার্চেন্টডাইজারের কাজের পরিধি ব্যাপক। একজন মার্চেন্টডাইজার যে দায়িত্ব ও কর্তব্য গুলো পালন করে থাকেন সেগুলো নিচে আলোচনা করা হল :

 ১. বাইয়ারের সাথে যোগাযোগ করা : 

একজন মার্চেন্ডাইজার গার্মেন্টস এর অর্ডার পাওয়ার জন্য বিভিন্ন বাইয়ারের সাথে সব সময় যোগাযোগ করে থাকেন । ইমেইলের মাধ্যমে তাদের সাথে প্রয়োজনীয় তথ্য লেনদেন করে থাকেন । 

২. গার্মেন্টস কস্টিং : 

একজন মার্চেন্টডাইজার অর্ডার পাওয়ার পূর্বে বাইয়ারের চাহিদার গার্মেন্টস এর কস্টিং করে থাকেন। বাইয়ারের চাহিদার দিকে লক্ষ্য রেখে গার্মেন্টস এর মুনাফার কথা মাথায় রেখে তাকে কস্টিং করতে হয়। 

৩. নেগোসিয়েশন: 

বাইয়ারের সাথে অর্ডার সংক্রান্ত সমস্ত আলোচনা করে উভয়ের সমজোতার মাধ্যমে একটি সিদ্ধান্তে আসা হয়। 

৪. অর্ডার গ্রহন: 

নেগোসিয়েশন এর পর বাইয়ারের কাছ থেকে গার্মেন্টস এর অর্ডার গ্রহন করে থাকেন একজন মার্চেন্টডাইজার। 

৫. কনজাম্পশন: 

গার্মেন্টস তৈরির জন্য কতটুকু কাপড় লাগবে তার পরিমাণ বের করাকে বলা হয় কনজাম্পশন ।মার্চেন্ডাইজার এই দায়িত্ব গুলো সঠিকভাবে পালন করে থাকেন।

৬. স্যাম্পল তৈরি: 

স্যাম্পল বিভাগের দ্বারা স্যাম্পল তৈরি করে তা বাইয়ারের কাছে এপ্রুভালের জন্য পাঠিয়ে থাকেন। স্যাম্পল বাইয়ার কর্তৃক এপ্রুভ হলে সম্পূর্ণ অর্ডারের গার্মেন্টস তৈরির জন্য প্রতিটি বিভাগকে তাদের নিজ নিজ কাজ বুঝিয়ে দেন একজন মার্চেন্ডাইজার। 

৭. মার্কার তৈরি: 

সম্পূর্ণ প্রডাকশনের প্রতিটি সাইজের গার্মেন্টস এর জন্য সঠিকভাবে মার্কার তৈরি করা হচ্ছে কি না তা  তদারকি করে থাকেন একজন মার্চেন্টডাইজার। 

৮. কাটিং সেকশন: 

কাটিং সেকশনে ঠিকমত গার্মেন্টস এর প্রতিটি প্যাটার্ন তৈরি হচ্ছে কি না তা ও লক্ষ্য রাখতে হয় একজন মার্চেন্টডাইজারকে  । 

৯. গার্মেন্টস তৈরি: 

গার্মেন্টস সেক্টরের সবচেয়ে বড় বিভাগ হচ্ছে এটি । এখানে প্রতিটি প্রডাকশন লাইনে ঠিকমত কাজ করছে কিনা তা খুবই দায়িত্বের সাথে দেখতে হয় একজন মার্চেন্টডাইজারকে । প্রতিটি গার্মেন্টস বাইয়ারের মেজারমেন্ট অনুযায়ী ঠিকঠাকমত সেলাই হচ্ছে কিনা তা দেখতে হয়। 

১০. ফিনিশিং : 

গার্মেন্টস তেরির পর প্রেসিং ও ফিনিশিং এর কাজ ঠিকমত হচ্ছে কিনা তা দেখে থাকেন। 

১১. প্যাকেজিং : 

গার্মেন্টস তৈরির পর  সঠিকভাবে প্যাকেজিং হচ্ছে কি না সেই বিষয়টিও খেয়াল রাখেন একজন মার্চেন্টডাইজার। 

১২ . বাইয়ারের কাছে গার্মেন্টস হস্তান্তর : 

সব শেষে বায়ারের কাছে সুন্দরভাবে গার্মেন্টস হস্তান্তররের কাজটিও করে থাকেন একজন মার্চেন্টডাইজার। 

গার্মেন্টস শিল্পের সফলতার পিছনে একজন মার্চেন্টডাইজার দায়িত্ব ও কর্তব্য বলে শেষ করা যাবে না । একজন মার্চেন্টডাইজার খুবই দক্ষতার সাথে তার দায়িত্ব ও কর্তব্য গুলো পালন করে থাকেন ।

শামীমা ইয়াছরাত

প্রভাষক 

বস্ত্র পরিচ্ছদ ও বয়নশিল্প 

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here