Tuesday, May 28, 2024
More
    HomeMotivationalবস্ত্রশিল্পে বাংলাদেশ

    বস্ত্রশিল্পে বাংলাদেশ

    সভ্যতার বিকাশের সাথে সাথে সকলপ্রকার শিল্পের বিপ্লব ও উন্নতি সাধিত হচ্ছে।মূলত সকল প্রকার কাজই সৌন্দর্যমন্ডিত হয় শিল্পীর অপরুপ শিল্পের দ্বারা।এমনই এক শিল্পর নাম পোশাক বা বস্ত্রশিল্প।যার উন্নতি ও অগ্রগতি সাধিত হয়েছে দক্ষ বস্ত্র প্রকৌশলী ও পোশাক শ্রমিকদের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠার ফলে।


    একদশক পূর্বেও দেশের বয়নশিল্প কারখানাগুলো নিম্নমানের সুতা তৈরি করতো।কিন্তু বর্তমানে শিল্পখাতে অগ্রগতির ফলে বিশেষত বেসরকারি খাতে বয়নশিল্পের বিকাশের ফলে এ পরিস্থিতি এখন অনেকটাই বদলেছে।এখন তুলট সুতা,পলিস্টার,সিনথেটিক সুতা,পশমি সুতা এবং তুলা ও পলিস্টার মিশ্রিত সুতা অনায়াসেই তৈরি হচ্ছে।বাংলাদেশের আধুনিক বয়ন শিল্পে উৎপন্ন দ্রব্যগুলো হলো- শাড়ি,ধুতি,ব্লাউজ,শার্টের কাপড়,লংক্লথ,পপলিন,সালু,গ্রে-মার্কিন ইত্যাদি সুতি কাপড়।


    বাংলাদেশে মাসিক নিম্ন মজুরি হার এবং বস্ত্রকল স্থাপনের উপযোগী অবকাঠামো তৈরিতে তুলনামূলক কম খরচের জন্য এই বিশেষ খাতে বিনিয়োগ আকর্ষনীয়।অন্যদিকে হংকং,কোরিয়া,সিঙ্গাপুর,তাইওয়ান ইত্যাদি দেশে মূলধন ও শ্রমের ব্যয় দ্রুতহারে বৃদ্ধির ফলে উন্নত দেশসমূহ আমাদের দেশ থেকেই কাপড় উৎপাদন করাকে অধিক লাভজনক মনে করছে।এতে একই সাথে দেশের বেকারত্বও কমছে ও অধিক হারে দেশ বৈদেশিক মূদ্রা উপার্জনেও সক্ষম হচ্ছে।তাই দেশের পোশাকশিল্প ও একই সাথে দেশের অর্থনীতি সক্রিয় রাখতে এই খাতের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।🖤


    তথ্যসূত্রঃ বাংলাপিডিয়া 


    Written by:Md Istiaque Hossain Ullash Dept of Fabric Engineering 2nd batchDr. M A Wazed Miah Textile Engineering College,Pirgonj,Rangpur.

    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    Most Popular

    Recent Comments