Home Traditional Textile বস্ত্র পরিধান ও এর শুরুর ইতিহাস।

বস্ত্র পরিধান ও এর শুরুর ইতিহাস।

পোশাকের সাথে মানুষের সম্পর্ক বহু আগের। প্রাচীন গুহাবাসী মানুষ থেকে আজকের আধুনিক মানুষ, সবার জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অনুষঙ্গ হচ্ছে পোশাক। পোশাকের সাথে আবহাওয়া এবং সংস্কৃতির সম্পর্ক অত্যন্ত গভীর। ভিন্ন ভিন্ন আবহাওয়ার মানুষ বিভিন্ন সময়ে তাদের আবহাওয়ার সাথে সামঞ্জস্য রেখে পোশাক নির্বাচন করেছে। মধ্যপ্রাচ্যের মতো উষ্ণ অঞ্চলের মানুষ যতটা সম্ভব লম্বা পোশাক বেছে নিয়েছে রোদ থেকে শরীরকে বাঁচাতে। শীতপ্রধান অঞ্চলের মানুষ আঁটসাঁট পোশাক বেছে নিয়েছে প্রধান পোশাক হিসেবে। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায়, পোশাক নির্বাচনে যুক্ত হয়েছে রাজনীতি, অর্থনীতি ও সৌন্দর্যবোধ। বিভিন্ন সময়ে বাঙালির পোশাকেও এসেছে পরিবর্তন। আদি বাঙালিদের পোশাকের সাথে এ যুগের বাঙালিদের পোশাকে রয়েছে বিস্তর ফারাক। কখনো শাসকের প্রভাবে, কখনো ধর্মের প্রভাবে বাঙালি তাদের পোশাকে পরিবর্তন এনেছে।

প্রাথমিকভাবে পশুর শরীরের চর্ম ছাড়ানোর জন্য সে যুগের যে যন্ত্র প্রত্নতাত্ত্বিক নমুনা পাওয়া যায় কার্বন ডেটিং অনুযায়ী সেটির বয়স নির্ণয় করা হয় প্রায় ৭,৮০,০০০ বছর পূর্বে। কিন্তু পশুর চর্ম তখন মানুষের আশ্রয় তৈরীর জন্যেও ব্যবহার হত অর্থাৎ ছাউনি ধরনের কিছু। অন্যদিকে প্রথম সেলাই সুচের সন্ধান পাওয়া যায় আজ থেকে প্রায় ৪০,০০০ হাজার বছর আগে, যা ব্যবহার করা হত জটিল ডিজাইনের কাপড় বুননের জন্য। কাজেই পোশাক যে তারও আগে থেকে মানুষ পরিধান করা শুরু করেছে সেটি অনুমান করে নেয়া যেতে পারে সহজে।

সূক্ষ্ণ হাড়ের নিডল বা সুচের কার্বন ডেটিংয়ে পাওয়া গিয়েছে যে, সেটি প্রায় ২০,০০০ বছর পূর্বের এবং ধারণা করা হয় যে, এই ধরনের নিডল খুব সম্ভবত পশুর চর্ম সেলাই এবং এমব্রয়ডারি করার জন্য ব্যবহৃত হতো। রাশিয়ার সাঙ্ঘির নামক অঞ্চলে এক কবরে এক বালক ও এক বালিকার মৃতদেহে হাতির দাঁতের পুতি এবং শিয়ালের দাঁত এরকম এমব্রয়ডারি করা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিলো, যার সময়কাল বের করা হয় আনুমানিক ২৮,০০০ বছর আগে।

প্রস্তর যুগে গুহামানবেরা যে শুধু পশুর চর্ম পরিধান করতো সেটাই কিন্তু না। ১৯৯০ সালে চেক রিপাবলিকের পাভলোভ ও ডলনি ভেস্টোনিস-এর প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকা থেকে কাদামাটির উপর ঝুড়ি ও টেক্সটাইল পণ্যের, অর্থাৎ বস্ত্রের ছাপ আবিষ্কার করা হয়। অর্থাৎ গবেষকগণ ধারণা করেন যে সেই সময়ও বয়ন শিল্প ও বয়নকৃত কাপড় পাওয়া যেত। কার্বন ডেটিং-এর মাধ্যমে এর সময়কাল বের করা হয় আজ থেকে প্রায় ২৫,০০০ বছর আগে। কিন্তু গবেষকরা সঠিকভাবে এই মত দিতে পারেন নি যে এই বয়নকৃত কাপড় তখন পরিধানের জন্য ব্যবহার হতো কিনা। বরং এর বয়ন কৌশল দেখে মনে হয় যে, এগুলো কোনো এক জনগোষ্ঠীর ঐতিহ্যের প্রকাশ করে। পরবর্তীতে জর্জিয়ার জুজুয়ানা গুহা থেকে প্রাপ্ত প্রায় ৩০,০০০ বছর পূর্বের প্রাকৃতিক ফাইবারের তৈরী সুতা পাওয়া গিয়েছিলো যেগুলো ছিলো গোলাপী, কালো আর তুর্কি নীল রঙে ডাই করা। অর্থাৎ ডাই করার পদ্ধতি যে তারও আগে আবিষ্কৃত হয়েছিলো সে কথা ধরে নেয়া যায় সহজে। কিন্তু ৩০,০০০ বছর পূর্বের সময়কে আমরা খুব যে প্রাচীন বলতে পারি এমন নয়। কাজেই প্রশ্ন থেকে যাবে যে এরও আগে মানুষ বা মানুষের পূর্বপুরুষগণ কী পরিধান করতো।

বস্ত্রশিল্পের সন্ধানে যদি আমরা সময়ের আরো পেছনে যেতে চাই তাহলে এবার আমাদের কিছুটা নোংরা নমুনার দিকে চোখ বুলাতে হবে। সেটি হলো উঁকুন। মানুষের শরীরে লোমশ অংশগুলোতে মূলত উঁকুন থাকার সম্ভাবনা সর্বাধিক। মানবদেহের এই উঁকুন একসময় মানুষের পরিধেয় পোশাকে বসবাস করার জন্য নিজেদের অভিযোজিত করে। ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক এই গবেষণা পরিচালনা করেন। তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে মানুষ পোশাক পরিধান শুরু করে আজ থেকে প্রায় ১,৭০,০০০ বছর পূর্বে। কিভাবে তারা এটি বললেন? মূলত ওসব উঁকুনের ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমেই এসব তথ্য জানা যায়। অর্থাৎ, উঁকুনের অভিব্যক্তির পর্যালোচনা করেই এই তত্ত্ব দাঁড় করানো হয়।

কিন্তু অন্যান্য গবেষকরা মনে করেন তারও আগে থেকেই মানুষ পোশাক পরিধানের সাথে পরিচিত হয়েছিলো। যদি বিবর্তনের ধারাবাহিকতা অর্থাৎ ডারউইনের তত্ত্ব সত্য বলে মনে করা হয়, তবে যদি আমরা আরো শত-সহস্র বছর পূর্বে ফিরে যাই, অর্থাৎ যখন মানুষেরই বেশ কয়েকটি প্রকরণ বা গোষ্ঠী ছিলো (এমনকি ৪০,০০০ বছর পূর্বেও তিন প্রকারের মানুষের সন্ধান পাওয়া যায়), সেই সময়ে নিয়ান্ডারথাল ও রহস্যজনক ড্যানিসোভানস মানুষেরা গুহাজীবন যাপন করতো। এই বিভিন্ন প্রকার মানুষের সংকরায়নের ফলে একই ধারায় মানুষের অভিব্যক্তির কথা বলেছেন গবেষকগণ। উকুনের তত্ত্বটি তখনকার সময় থেকেই শুরু হয়েছিলো বলেও তাদের ধারণা। তবে সেসব মানবেরা যে সবসময় পোশাক পরিধান করতো তেমনটাও বলার কোনো যৌক্তিকতা নেই। এই সম্বন্ধে খুব কম নমুনাই পাওয়া গিয়েছে।

বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে পুরনো নমুনা ‘চর্যাপদ’। কিন্তু চর্যাপদ থেকে সেকালের নারী ও পুরুষেরা কী ধরনের পোশাক-পরিচ্ছদ ব্যবহার করতেন সে সম্বন্ধে আমরা কোনো ধারণা পাই না। তবে প্রাচীন ও মধ্যযুগের যেসব ভাস্কর্য, পোড়ামাটির ফলক ও পাণ্ডুলিপির চিত্র পাওয়া যায় তা থেকে আমরা তাদের পোশাক সম্বন্ধে কিছুটা জানতে পারি। তাদের বেশিরভাগ পোশাকই ছিল লজ্জা নিবারণ ও শীত-গ্রীষ্মসহ বিভিন্ন আবহাওয়ার রুক্ষতা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য দরকারী ন্যূনতম পোশাক। সেজন্যই সে সময়ে নারী-পুরুষের পোশাকে খুব একটা পার্থক্য ছিল না এবং এ যুগের মানুষের মতো রকমারি পোশাকও ছিল না।

ইংরেজরা বাংলায় আসার পর তাদের পোশাকের ছাপ পড়তে শুরু করে এ দেশের মানুষের পোশাকে। তবে মোঘলদের পোশাকের মতোই ইংরেজদের পোশাকও রাতারাতি সাধারণ মানুষের মধ্যে জায়গা করে নেয়নি। ইংরেজরা এই দেশে আসার পরেও বহুদিন এই দেশের মানুষেরা তাদের পোশাক গ্রহণ করেনি। ধীরে ধীরে প্রথমে অভিজাত এবং পরে সাধারণ মানুষদের মাঝে ইংরেজদের অনুকরণে পোশাক পরার প্রচলন শুরু হয়। মোঘলদের পতনের পরেও অনেকদিন পর্যন্ত এদেশের হিন্দু-মুসলমান উভয় ধর্মাবলম্বীরাই মোঘলদের পোশাক পরিধান করতেন। সমাচার দর্পণ পত্রিকায় ১৮৩৫ সালেও উল্লেখ করা হয় যে, বাবু, জমিদার, সেরেস্তাদার ও উকিল ইত্যাদি মহাশয়রা জামা, নিমা, কাবা, কোর্তা ইত্যাদি পোশাক পরতেন। রামমোহন রায় ও দ্বারকানাথ ঠাকুরদের ছবিতেও তাঁদেরকে এ ধরনের পোশাক পরতেই দেখা যায়। এসব পোশাকই ছিল অভিজাতদের পোশাক। রামমোহন রায়, দ্বারকানাথ ঠাকুর, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, স্বামী বিবেকানন্দসহ সেকালের সব অভিজাত ব্যক্তি তখনও মাথায় পাগড়ি পরতেন।

আস্তে আস্তে শুরু হতে থাকে বস্ত্র বিপ্লবের সূচনা। এখন প্রতিটি মানুষেরই ফ্যাশন ও স্ট্যাটাসের সাথে পোশাক পরিচ্ছদের আছে এক অঙ্গাঅঙ্গি সম্পর্ক। কিন্তু কিভাবে এই এলো এই পোশাক শিল্প, কে বা কারা আবিষ্কার করলো এই পোশাক- এসবের সম্পূর্ণ সঠিক উত্তর না পাওয়া গেলেও বেশ কিছু জোরালো তত্ত্ব ও তথ্যের সাথে আমাদের পরিচয় তো অবশ্যই হয়েছে।

Sajjadul Islam Rakib
Campus Ambassador-TES
NITER (10th Batch)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author