Home Traditional Textile বাংলার পাট-শিল্পের বিপ্লব প্রথম পর্ব(ব্রিটিশ ও এর আগের সময়)

বাংলার পাট-শিল্পের বিপ্লব প্রথম পর্ব(ব্রিটিশ ও এর আগের সময়)

পাট শিল্প বাংলার অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। বিংশ শতাব্দীর শুরুতে, বাংলা কেবল একটি উৎপাদন শিল্প – পাট নিয়ে গর্ব করতে পারে। এটি বাংলার মোট শিল্প কর্মীদের প্রায় অর্ধেককে নিযুক্ত করেছিল। ১৯০০-১ সালে, পাট উৎপাদন রপ্তানি মূল্য বাংলার সমগ্র রপ্তানি বাণিজ্যের প্রায় এক তৃতীয়াংশ ছিল।

পাট-শিল্পের ১ম অবস্থা :

এই শিল্পের শুরুতে আধিপত্য ছিল ইউরোপীয়রা এবং পরে মারোয়ারি দ্বারা। ইতিহাসের বেশিরভাগ সময় পাট কারখানায় তিন চতুর্থাংশ শ্রমিক অবাঙালি ছিল। বাঙালিরা সাধারণত শিল্পে মধ্যবর্তী অবস্থান দখল করে। শিল্পের কাঁচা পাট পূর্ব বাংলা থেকে আসত।১৮৫৫ সালে প্রথম পাটকল প্রতিষ্ঠার আগে হ্যান্ডলুম তাঁতীরা দরিদ্রদের জন্য সুতা, দড়ি, মোটা কাপড় তৈরির জন্য এবং মাছ ধরার জন্য এবং পাত্রগুলি মুড়ানোর জন্য পাট ব্যবহার করত। অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষের দিকে, পাট ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া সংস্থার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল, যা পাটের নমুনাগুলির একটি চালান ইংল্যান্ডে পাঠিয়েছিল যা সফলভাবে ফ্লেক্স যন্ত্রপাতি দ্বারা কাটা হয়েছিল।ব্রিটিশরা তেল এবং জল যোগ করে পাটকে শক্ত এবং ভঙ্গুর প্রকৃতি নরম করার উপায়ও খুঁজে পেয়েছিল। এটি ফাইবারকে আরও নমনীয় এবং সহজেই পৃথকযোগ্য করে তোলে এবং ফলস্বরূপ ব্যবহারযোগ্য করে তৈরি করে।

বাংলার পাট-শিল্পে ব্রিটিশ হস্তক্ষেপ : পাট-শিল্পে ব্রিটিশ হস্তক্ষেপ :

বেশ কয়েকটি ঐতিহাসিক ঘটনা পাট শিল্পের বিকাশের জন্য দায়ী ছিল। ১৮৩৮ সালে, ডাচ সরকার ইস্ট ইন্ডিজ থেকে কফি বহনের জন্য ফ্লেক্স পরিবর্তে পাটের তৈরি ব্যাগ নির্দিষ্ট করে দেয়। এ সময় রাশিয়া থেকে ফ্লেক্স আমদানি করা হত। তবে, ১৮৫৪-৫৬ এর ক্রিমিয়ান যুদ্ধের ফলে রাশিয়া থেকে ফ্লেক্স সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায় এবং যুক্তরাজ্যের বিখ্যাত পাট উৎপাদন কেন্দ্র ডান্ডিকে বিকল্পগুলির সন্ধান করতে বাধ্য করা হয়। ডানডিতে, ফ্লাকস মিলগুলি পাটকলগুলিতে রূপান্তরিত করা হয়েছিল।অন্যদিকে আমেরিকান গৃহযুদ্ধ (১৮৬১-৬৫) পাট ব্যবসায়কে আরও গতি দেয়, কারণ আমেরিকান সুতির সরবরাহ অনেকটা সীমাবদ্ধ ছিল। সেই থেকে এই শিল্পটি শ্লেষ বা তুলার কাছে ফিরে আসেনি। এই স্থায়ী স্থানান্তরটির মূল কারণ ছিল এর তুলনামূলক ব্যয় সুবিধা।পাট শিল্প দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছিল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, অস্ট্রিয়া, ইতালি, হল্যান্ড, স্পেন, রাশিয়া, ব্রাজিল এবং বাংলাসহ অনেক দেশে পাটকল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এর ফলে পাটের চাহিদা দ্রুত বৃদ্ধি পায়। পাটচাষের আওতাধীন এলাকা বাড়িয়ে বাঙালি কৃষকরা বিশ্বের চাহিদা মেটাতে দ্রুত সাড়া দিয়েছিল।প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সূত্রপাতের ফলে কাঁচা পাটের চাহিদা দ্রুত বেড়ে যায়, যেহেতু এটি সেনাদের জন্য খাদে সৈন্যদের রক্ষা করতে এবং সেনাবাহিনীর জন্য খাদ্যশস্য বহনের জন্য বারুদব্যাগ উত্পাদন করতে ব্যবহৃত হত। অনিবার্যভাবে পাটের দামও তীব্র আকারে বেড়ছিল। যদিও বাংলা, বিশেষত পূর্ব বাংলা ভালো মানের কাঁচা পাটের প্রধান উৎপাদক ছিল,ডুন্ডিতে পাট কাটার স্পেন্নিং যন্ত্র আনার ২০ বছর পর প্রথম পাটকলটি কলকাতার নিকটবর্তী রিসরাউতে হুগলির তীরে ১৮৫৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল । কারিগরি হাতে না পাওয়া এবং মেশিন চালনার ক্ষমতা পাওয়ার কারণে বিলম্ব হয়েছিল। ১৮৫৪ সালে কয়লাখনি রানীগঞ্জে খোলা হয়েছিল।বিদ্যুতের সহজলভ্যতায় আকৃষ্ট হয়ে জর্জ অকল্যান্ড নামে একজন ইংরেজ প্রথম পাটকল প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু তিনি যুক্তিসঙ্গত লাভ করতে না পেরে ব্যবসায় ছেড়ে চলে যান। ১৮৫৯ সালে, বোর্নি সংস্থা স্পিনিং এবং ওয়াভিং সুবিধার সাথে দ্বিতীয় মিলটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। অকল্যান্ড মিলের বিপরীতে, এটি প্রতিষ্ঠার পরে উন্নতি করতে শুরু করে। পাঁচ বছরের মধ্যে এটি তার পরিকল্পনার দ্বিগুন আকার ধারন করে।১৮৬৬ সালে, তিনটি নতুন মিল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ১৮৬৮ এবং ১৮৭৩ এর মধ্যে এই মিলগুলি বড় লাভ করেছে। ১৮৭৪ সালে পাঁচটি নতুন প্রতিষ্ঠান শুরু হয়েছিল এবং ১৮৭৫ সালে আরও আটটি। এইভাবে, উনিশ শতকের শেষের দিকে পাট শিল্পে বাংলায় একটি সত্যিকারের উত্থান হয়েছিল।পাটকল প্রতিষ্ঠার সাথে সাথে বাংলা ব্যাগ বস্তা রপ্তানিকারক দেশে পরিণত হয়। কলকাতা ডান্ডির শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল এবং আমেরিকা সহ বিশ্বের অনেক জায়গাতেই সাফল্যের সাথে ডুন্ডির হেসিয়ান বাজারে প্রবেশ করেছিল, মূলত কারণ কলকাতার পাটের পণ্য তৈরিতে ব্যয় ছিল।দ্বিতীয়ত, এটি পূর্ববাংলা ও আসামের পাট চাষকারী জেলাগুলির নিকটবর্তী স্থানে অবস্থিত। তৃতীয়ত, এটিতে সস্তা শ্রম ছিল। চতুর্থত, মিলগুলি ১৫ থেকে ১৬ ঘন্টা চলত, এবং কখনও কখনও এমনকি ২২ ঘন্টাও দৈনিক। এটি কলকাতার নির্মাতাদের আর্থিক দিক থেকে সুস্পষ্ট সুবিধা অর্জনের দিকে নিয়ে যায়।তদুপরি, তারা পাটের আরও ভাল মানের অফার করতে পারছিল। ১৮৮০ এবং ১৯৪০ এর মধ্যে ষাট বছরে, মিলগুলির সংখ্যা প্রতি বছরে ৫ গুণ করে, তাঁতের সংখ্যা প্রায় ১৪ গুণ, স্পিন্ডল ১৯ বার এবং কর্মীসংখ্যা ১১ গুন করে বৃদ্ধি পাচ্ছিলো।

পরিসংখ্যান:

১৯০০ এবং ১৯২০ এর মধ্যে 20 বছরের সময় শিল্পের বৃদ্ধি উল্লেখযোগ্য ছিল।যেখানে ১৯৭৯-৮০ সালে মিল সংখ্যা ছিল ২২টি, তাতঁ ছিল ৫,০০০ টি মত, স্পিন্ডল হত প্রায় ৭১,০০০ বার এবং কর্মী সংখ্যা ছিলো ২৯,০০০ জন মত।সেখানে ১৯০০-০১ সালের দিকে মিল সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬ টিতে, তাতঁ ১৬,১০০ টি, স্পিন্ডল হত ৩,৩১,৪০০ বার এবং কর্মী সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় প্রায় ১,১৪,৮০০ জনে। আবার তার ২০ বছর পর ১৯২০-২১ সালে মিল ছিল ৭৭ টি, তাতঁ সংখ্যা ছিল ৪১,৬০০, স্পিন হত ১৩,৭০,০০০ বার ও এসবের জন্য কর্মী ছিল ২,৯৯,০০০ জন প্রায়। আবার তার প্রায় ২০ বছর পর ১৯৩৮-৩৯ সালের দিকে মিল ছিল ১১০ টি, তাতঁ সংখ্যা ছিল ৬৯,০০০, স্পিন হত ১,৩৭০,০০০ বার ও এসবের জন্য কর্মী ছিল ২,৯৯,০০০ জন প্রায়। তবুও
১৯৩৩-৩৪-এর মহামন্দার সময়, পাটজাত সামগ্রীর চাহিদা বিশ্বজুড়ে হ্রাস পাওয়ায় পাট শিল্প মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল।

সংগ্রহিত[বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন ]

Written by
MD Eshtiak Ahmed Ayoun
BGMEA University of Fashion & Technology

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author