Sunday, May 26, 2024
More
    HomeSustainabilityপুনর্ব্যবহৃত টেক্সটাইল এ বাংলাদেশ এবং গ্লোবাল পরিস্থিতি

    পুনর্ব্যবহৃত টেক্সটাইল এ বাংলাদেশ এবং গ্লোবাল পরিস্থিতি

    ” পৃথিবী বাঁচাতে রিসাইক্লিং ” নামক কোনো এক পর্বে আমাদের কথা হয়েছিল পুনর্ব্যবহৃত টেক্সটাইল নিয়ে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ কথা হবে পুনর্ব্যবহৃত টেক্সটাইল এ বাংলাদেশ এবং গ্লোবাল অবস্থান নিয়ে। তো, Textile recycling এমন এক প্রক্রিয়া যার দ্বারা পুরানো পোশাক এবং অন্যান্য বস্ত্র কে নতুন করে উপাদান করা হয় বা পুনরায় ব্যবহার করা হয়। 

    গ্লোবাল টেক্সটাইল পুনর্ব্যবহার বাজারটি 2014-15 সালে প্রায় 19% এর CAGR পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছিল। তবে 2026 সালের মধ্যে এটি 0.8 বিলিয়ন ডলারে পৌঁছানোর আশা করা হয় । অ্যালাইড মার্কেট রিসার্চের প্রতিবেদন অনুসারে, এর CAGR 5.2% (2019-2026) হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

    অন্যদিকে একটি পরিসংখ্যান অনুযায়ী জানা যায়, বিভিন্ন পুনর্ব্যবহৃত সুতার চাহিদা (যেমন: পুনর্ব্যবহৃত সুতি, উল, পলিয়েস্টার, নাইলন ইত্যাদি) 2016 সালের মধ্যে ৫০% -১০% পর্যন্ত বেড়েছে ।

    যেহেতু লোকেরা দিন দিন পরিবেশ সম্পর্কে আরও সচেতন হচ্ছে, তাই বলা যায় যে উত্তর আমেরিকা এবং ইউরোপ হ’ল পুনর্ব্যবহারযোগ্য সুতোর জন্য সবচেয়ে লুব্রিভেটিভ বাজার। 

    ইউরোপে বেশিরভাগ প্লাস্টিকের বর্জ্য পুনর্ব্যবহার করা হয়, যেখানে 50% এর বেশি পিইটি বোতল গুলো ফাইবার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। শুধু তাই না এস্তোনিয়া (উত্তর ইউরোপ) ভিত্তিক একটি সফ্টওয়্যার সংস্থা সর্বাধিক ব্যবহার এবং আরও ভাল মান নিশ্চিত করতে পোশাক বর্জ্যের জন্য একটি অনলাইন মার্কেট প্লেয়ার বিকাশের চেষ্টা করছে। তাছাড়া বর্তমানে খালুম, চিন্দি, কিশকো গ্রুপ, আনন্দী এন্টারপ্রাইজ, উষা ইয়ার্নস লিমিটেড, রিনিউ সেল এ বি, হায়োসং টিএনসি কোং লিমিটেড, মার্কেটেক্স ফাইবার, অটো গার্ন, লেই ফাইবার্স ইনক- নামের বিখ্যাত কোম্পানিগুলো পুনর্ব্যবহৃত সুতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

    বিশ্বজুড়ে নামী ব্র্যান্ড গুলো টেক্সটাইল বর্জ্যগুলো রিসাইক্লিং এবং আপসাইক্লিং করছে। যেমন-বিট্রোড রেট্রো, প্যাটাগোনিয়া, স্বর্ণকেশী গ্যাং দুষ্টু, ফ্যাব্রিক ফর ফ্রিডম, আইডি, রুবিমুন, জিরো ওয়েস্ট ড্যানিয়েল, রেডোন, ইকোল্ফ ইত্যাদি 

    আবার গার্লফ্রেন্ড কালেক্টিভ, বাতোকো, প্যাটাগোনিয়া, এলি ইভান্স, ইকোল্ফ, এডিএই, ম্যারা হফম্যান, গুচি, এর মতো ফ্যাশন ব্র্যান্ড গুলি রিপেইন্টেড প্লাস্টিকের বোতলগুলো ফ্যাব্রিক (পলিয়েস্টার) এবং পুনরায় ম্যানুফ্যাকচারিং সাঁতার, পোশাক, উষ্ণ আউটওয়্যার, লেগিংস, জ্যাকেট ইত্যাদিতে পুনর্ব্যবহার করছে। 

    অনেক তো হলো এবার দেশের কথায় আসি।

    দুঃখের হলেও সত্য যে বাংলাদেশের বার্ষিক পোশাক বর্জ্য প্রায় 0.4 মিলিয়ন টন তবে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হলে এটা থেকে 4 বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি ব্যবসায় করা সম্ভব । 

    বিশ্বের বৃহত্তম প্লাস্টিক বর্জ্য নিঃসরণকারি দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ দশম। এখানে প্রতিদিন 3,000 টন প্লাস্টিকের বর্জ্য উৎপন্ন হয় যা প্রতি বছর 1 মিলিয়ন টনের বেশি ফলাফল করে।

    বাংলাদেশের একমাত্র কারখানা সিমকো স্পিনিং অ্যান্ড টেক্সটাইল লিমিটেড (ভালুকা, ময়মনসিংহ) পোশাকের বর্জ্য পুনর্ব্যবহার করে । কারখানাটি তুলোর ক্লিপ থেকে দিনে 15 টন সুতা উৎপাদন করতে সক্ষম, যার গ্রাহক হিসেবে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, স্পেন, ইতালি এবং তুরস্ক এর মত দেশ ।

    বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের জন্য অর্থায়ন, উন্নয়ন নীতি অর্থায়ন, এবং প্রযুক্তিগত পরামর্শ সহ বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্পগুলির জন্য অর্থায়ন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দিয়ে থাকে। 2000 সাল থেকে, বিশ্বজুড়ে 340 টিরও বেশি কঠিন বর্জ্য পরিচালনার কর্মসূচীতে 7 4.7 বিলিয়ন ডলারেরও বেশি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করেছে টোকিও ডেভেলপমেন্ট লার্নিং সেন্টার, ক্লাইমেট এন্ড ক্লিন এয়ার কোয়ালিশন, কোরিয়ান গ্রিন গ্রোথ ট্রাস্ট ফান্ড, এবং ফলাফল-ভিত্তিক পদ্ধতির উপর গ্লোবাল পার্টনারশিপ (GPRBA), আন্তর্জাতিক সলিড বর্জ্য সমিতি (ISWA) এর মতো মূল্যবান অংশীদারিরা ।   

    পরিবেশ ও মানুষকে বাঁচাতে বিশ্বজুড়ে টেক্সটাইল শিল্পগুলিকে টেক্সটাইল বর্জ্য এবং প্লাস্টিকের বর্জ্য গুলোকে উদ্ভাবনী টেক্সটাইল পণ্যগুলিতে পুনর্ব্যবহার করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। বৈশ্বিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য অর্থনৈতিক সমাধান হওয়ার পাশাপাশি এটি আমাদের পাশে নতুন সুযোগের (কর্মসংস্থান, বৈদেশিক মুদ্রা, টেকসই যোগ্যতা ইত্যাদি) দরজা খুলে দেবে এবং টেকসই টেক্সটাইল শিল্পের প্রচার করবে।অন্যদিকে নতুন সুযোগ, কর্মসংস্থান, পরিবেশের জন্য বিদেশী মুদ্রা সরবরাহের জন্য টেক্সটাইল গুলোতে বর্জ্য পুনর্ব্যবহার করা এক গুরুত্বপূর্ণ উৎস হতে পারে ।

    Source :
    https://textilefocus.com/10919-2/

    Writers Information :
    Md. Abir Hasan 
    Department: Textile Engineering
    BGMEA University of Fashion and Technology 
    Mail: [email protected]

    RELATED ARTICLES

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    Most Popular

    Recent Comments