Home Fiber সিল্কের আপাদমস্তক

সিল্কের আপাদমস্তক

মানুষের বেঁচে থাকার জন্য ৫টি মৌলিক উপাদান প্রয়োজন। পোশাক এর মধ্যে একটি। আদিম যুগ থেকে মানুষ লজ্জা নিবারনের জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে আসছে। আর সেই সাথে সাথে পোশাকের এবং কাপড়ের ভিন্নতাও দেখা যাচ্ছে।প্রকৃতি দিয়েছে পোশাক তৈরির নানা উপাদান। সিল্ক তার মধ্যে একটি অন্যতম উপাদান । একে বলা হয়ে থাকে কুইন অফ ফাইবার।

সিল্কঃ
Silk শব্দটি প্রাচীন ইংরেজি Sioloc শব্দ থেকে এসেছে। সিল্ক হচ্ছে একধরনের ন্যাচারাল ফাইবার। যা পাওয়া যায় রেশমপোকা থেকে। রেশমের সর্বাধিক পরিচিত ধরন Bombix mori নামের রেশম পোকার লার্ভার গুটি থেকে সংগ্রহ করা হয়। গুটির উপর সিল্ক ফাইবারের দৈর্ঘ্য অনেকটা নির্ভর করে।রেশম পোকার গুটি চাষের পদ্ধতিকে সেরিকালচার বলে।

ইতিহাসঃ
চীন কে সিল্কের জন্মস্থান বলা হয়। সিল্কের সৃষ্টি নিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রচলিত মতবাদ রয়েছে। একটি ঘটনা খুবই প্রচলিত যা চীনের রানী সী লিং (Si -Ling) কে নিয়ে।একদিন সকালে তিনি গাছের নিচে চা পানরত অবস্থায় গাছ থেকে রেশমগুটি চায়ের মধ্যে পরে। তখন তিনি লক্ষ্য করেন যে গুটি থেকে সুতা আলাদা হয়ে গিয়েছে।বলা হয়ে থাকে সেখান থেকেই সিল্কের উৎপত্তি। তাছাড়া আরো বলা হয়ে থাকে যে চীনই ছিল একমাত্র সিল্ক উৎপাদনকারী দেশ প্রায় ৩,০০০ বছর ধরে। ধীরে ধীরে এশিয়ার অন্য দেশগুলোতে সিল্কের পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে।

সিল্করোডঃ
সিল্ক নিয়ে কথা বললে সিল্ক রোডের কথা এসে পরে। একটা সময় পরে চীন ছাড়াও বাহিরের অন্যান্য দেশে সিল্কের চাহিদা বাড়তে থাকে। তার সাথে সাথে বাড়তে থাকে বণিকদের লাভ। একসময় চীন থেকে এত সিল্কের কাপড় রপ্তানি হতে লাগলো যে যেই পথ দিয়ে সিল্ক নিয়ে যাওয়া হত সেই পথের নাম হয়ে গেলো সিল্করোড।এই রাস্তা দিয়েই পশ্চিমা দেশগুলোতে সিল্ক রপ্তানি করা হত। পশ্চিম চীন থেকে ভূমধ্যসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত এই রাস্তার দৈর্ঘ্য ছিলো প্রায় ৪ হাজার মাইল।

সিল্কের ধরনঃ
Eri Silk
Muga Silk
Spider Silk
Mussel Silk
Anaphe Silk
Coan Silk

যেসব দেশগুলো সাধারণত সিল্ক উৎপাদন করে থাকেঃ
চীন ( ৭০%)
ভারত
জাপান
থাইল্যান্ড
ফ্রান্স
ব্রাজিল
কোরিয়া
ইতালি
তুর্কি
মালেশিয়া

সিল্ক উৎপাদনঃ ১কেজি সিল্ক উৎপাদন করতে ৩ হাজার রেশম পোকার প্রায় ৫ হাজার টি রেশমপোকা লাগে। সিল্ক বেশ কয়েকটি পোকামাকড় দ্বারা উৎপাদিত হয়; তবে সাধারণত শুয়ো পোকার রেশমই টেক্সটাইল পণ্য তৈরির জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

সিল্কের বিখ্যাত হওয়ার কারন সমূহঃ
সিল্কের শোষন ক্ষমতা বেশি হওয়ায় উষ্ণ আবহাওয়াতে খুবই আরামদায়ক এবং এর কম পরিবাহিতা শীতল আবহাওয়ার সময় উষ্ণ বায়ু ত্বকের কাছে রাখে।সিল্কের উজ্জ্বলতা অত্যন্ত আকর্ষনীয় ও দৃষ্টিনন্দন। এর কারণেও সিল্কের ব্যবহার বাড়তে থাকে।

সিল্ক প্রস্তুতকারী কিছু প্রতিষ্ঠানঃ
Hangzhou K&M Textile Co.Ltd
Wujiang First Textile Co.Ltd
Beijing Konvier Textile Group.Co.Ltd
Eastern Silk Industries
Bangladesh Sericulture Research & Training Institute

Name:Fateha Tuj Jafrin
Team member – TES
Niter 10th batch

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author