Home Textile Manufacturing Printing All Over Printing এ রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ও ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং...

All Over Printing এ রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ও ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন

প্রিন্টিং এর ইতিহাস কখন থেকে শুরু হয়েছে তা এক প্রকার ধোঁয়াসার মধ্যে রয়েছে। কিন্তু নিশ্চিতভাবে বলা যায়, সর্বপ্রথম চীনে প্রিন্টিং এর কাজ শুরু হয়। কেননা, চীনারই সর্বপ্রথম কাঠের ব্লক খোদাই করে কাপড় ছাপার কাজ শুরু করেছিল। প্রাচীনকালে প্রিন্টিং মানেই ছিলো কটন ফেব্রিকে গাছপালা, জীবজন্তু, ফুল-ফল, পাখি ইত্যাদির ছাপ দেওয়া। পরে ধীরে ধীরে প্রিন্টিং এর ডেভেলপ হতে থাকে। বর্তমানে প্রযুক্তিগত ও যান্ত্রিকভাবে, অনেক নতুন নতুন পদ্ধতিতে ফেব্রিক প্রিন্টিং হচ্ছে। তারমধ্যে All Over Printing ডিজাইন অন্যতম।

All Over Printing এর মাধ্যমে সম্পূর্ন ফেব্রিকে একটি ডিজাইনকে ক্রমাগত ফুটিয়ে তোলা হয়। এতে সম্পূর্ণ ফেব্রিকটি আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। মানুষ আকর্ষণীয় ফেব্রিকের প্রতিই বেশি আকৃষ্ট হয়।

অল ওভার প্রিন্টিং কে দুই ভাগে ভাগ করা যায়:

  • নীট ফেব্রিক প্রিন্টিং
  • ওভেন ফেব্রিক প্রিন্টিং

অল ওভার প্রিন্টিং এ প্রিন্টিং চেক পয়েন্ট:

  • রিপিট মেজারমেন্ট
  • সোয়াচ অথবা পেন্টোন কালার
  • ফেব্রিকেশন
  • সফট ফাইল কোয়ালিটি
  • হ্যান্ডস্টাইক অফ সাইজ
  • বেস কালার
  • হ্যান্ডস্টাইক অফ কোয়ানটিটি

All Over Printing মেশিন এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় 2টি মেশিন হলো রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ও ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন। দুইটি মেশিনেই স্ক্রিনের মাধ্যমে ফেব্রিকে প্রিন্ট করা হয়।

♦️ রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং এবং ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং এর মধ্যে তুলনা:

১.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনের স্ক্রিন গোলাকার, অন্যদিকে ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনের

স্ক্রিন ফ্ল্যাট থাকে।

২.রোটারি স্ক্রিন নিকেলের তৈরি, অন্যদিকে ফ্লাটবেডে অ্যালুমিনিয়াম ফ্রেমের সাথে পলিয়েস্টার সংযুক্ত করে স্ক্রিন তৈরি করতে হয়।

৩.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং এর মাধ্যমে প্রোডাকশন বেশি হয়, অন্যদিকে ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং এর মাধ্যমে প্রোডাকশন কম হয়।

৪.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে দ্রুতগতিতে ক্রমাগত ফেব্রিক প্রিন্ট হয়, অন্যদিকে ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে ফেব্রিক প্রিন্ট হতে সময় লাগে।

৫. রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে প্রতি মিনিটে ৩০-৮০ মিটার ফেব্রিক প্রিন্ট করা যায়, কিন্তু ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে প্রতি মিনিটে ১৫- ২০ গজ ফেব্রিক প্রিন্ট করা যায়।

৬.রোটারি স্কিন প্রিন্টিং এ পাইপের মাধ্যমে ড্রাম থেকে কালার Compressor মেশিনের সাহায্যে স্ক্রিনের মধ্যে প্রবেশ করে, অপরদিকে ফ্লাটবেডে ম্যানুয়ালি কালার দিতে হয়।

৭.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে জায়গা কম থাকে, অন্যদিকে ফ্লাটবেডে জায়গা বেশি থাকে।

৮.রোটারি স্ক্রিনের ডিজাইনের জন্য লিমিটেশন থাকে কারণ যেসব ডিজাইন continuous থাকে সেগুলোই শুধু করা যায়, অন্যদিকে ফ্লাটবেড স্ক্রিনের সাহায্যে যেকোনো ধরনের ডিজাইন করা যায়।

৯.থান কাপড়ে বা যেসব শাড়িতে পাইর ও আচলের ডিজাইন একইরকম সেগুলোর জন্য রোটারি স্ক্রিন প্রিন্ট করা হয়, অপরদিকে থ্রি-পিস, শাড়িতে যেসব ডিজাইনে ভিন্নতা থাকে যেমন থ্রি-পিসের গলার ডিজাইন একরকম, হাতার ডিজাইন অন্যরকম থাকে আবার শাড়িতে আঁচল ও পাইর ভিন্নরকম সেগুলো ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্ট করা হয়।

১০.রোটারিতে কালার wastage বেশি হয় কিন্তু ফ্লাটবেডে কালার wastage কম হয়।

১১.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনের তুলনায় ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে খরচ কম।

১২. প্রতিটি রোটারি স্ক্রিনের মূল্য ৫-৮ হাজার টাকা অপরদিকে প্রতিটি ফ্লাটবেড স্ক্রিনের মূল্য ৩-৪ হাজার টাকা।

১৩.ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে যেকোনো সাইজের ডিজাইন করা হয় কিন্তু রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে সাইজের লিমিটেশন থাকে।

১৪. রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং এ manpower কম, অন্যদিকে

ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং এ manpower বেশি।

১৫. বেশি quantity এর জন্য রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ব্যবহার করা হয়, অপরদিকে short quantity এর জন্য ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ব্যবহার করা হয়।

১৬.রোটারি স্ক্রিন expose করতে অনেক ধরনের মেশিনারিজ ব্যবহৃত হয়। অন্যদিকে ফ্লাটবেড স্ক্রিন expose করতে তুলনামূলকভাবে কম মেশিনারিজ ব্যবহৃত হয়।

১৭.রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন চলাকালীন মাঝে মাঝে স্ক্রিন ভেঙ্গে যায়, তবে ফ্লাটবেডে মেশিন চলাকালীন স্ক্রিন ভাঙ্গে না।

 ♦️রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন এবং ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনের মধ্যে কোন মেশিন কেন ভালো?

◾যে সমস্ত ফেব্রিক প্রিন্ট করতে white paste ব্যবহৃত হয় সেসব ডিজাইন ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে ভালো হয়। সাধারণত ডিপ ডায়িং ফেব্রিক এর উপর ডিসচার্জ প্রিন্ট করা হয় আর ডিসচার্জ প্রিন্ট এর জন্য white paste অবশ্যই ব্যবহার করতে হয়। কেননা, কালো বা নেভি ব্লু ফেব্রিকের উপর হলুদ কালার দিলে দেখা যাবে। white paste এর উপর লাইট কালার ব্যবহার করতে হয়। কত % white paste ব্যবহার করতে হবে তা কালারের শেডের উপর নির্ভর করে।

◾বেশি কোয়ান্টিটি এর প্রোডাকশন এর জন্য রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো কারণ দ্রুতগতি ক্রমাগত ফেব্রিক প্রিন্ট হয়।

◾কম কোয়ান্টিটি এর প্রোডাকশন এর জন্য ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾ডিজাইনের smoothness ও sharpness এর কোয়ালিটি ভালো হয় ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে।

◾Disperse বা Reverse প্রিন্ট এর জন্য রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾Knit ফেব্রিক এ প্রিন্টের জন্য ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾ডিজাইনের ভেরিয়েশনের জন্য ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾একই ধরনের continuos ডিজাইনের জন্য রোটারি স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾CMYK এর ডিজাইনের জন্য ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিন ভালো।

◾Discharge, glitter, whitepaste, apson print এর ডিজাইনের smoothness ও sharpness রোটারি স্ক্রিন প্রিন্ট থেকে ফ্লাটবেড স্ক্রিন প্রিন্টিং মেশিনে ভালো হয়। স্ক্রিন ফ্ল্যাট থাকে।

আর্টিকেলটি লিখতে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছেন –
SHAWKAT HOSSAIN SOHEL
Cheief Designer
Unifill Composite Dyeing Mills Ltd.
General Secretary
All Over Printing Technology of Bangladesh

Writer Information:
Abida Ferdousi
Department of Textile Engineering
BGMEA University of Fashion & Technology(BUFT)
Batch-201 Campus Ambassador(TES TEAM-BUFT)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author

error: Content is protected !! Don\\\\\\\\\\\\\\\'t Try to Copy Paste.