Home Technical Textile পৃথিবী বাঁচাতে রিসাইক্লিং

পৃথিবী বাঁচাতে রিসাইক্লিং

থল-দীঘিতে সাঁতার কেটে আনব তুলে রক্ত-কমল,
শাপলা লতায় জড়িয়ে চরণ ঢেউ এর সাথে খাব যে দোল।
-জসীম উদ্‌দীন

এক সময় সে সব ছিল কিন্তু আজ জনসংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে মানুষের চাহিদা আর বর্জ্য। Environmental Protection Agency(EPA) এর তথ্য অনুযায়ী শুধুমাত্র টেক্সটাইল বর্জ্য 1960 সাল থেকে 811% বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশ্বব্যাপী আনুমানিক 100 বিলিয়ন পোশাক বার্ষিক উৎপাদন হয়। 

রিপোর্ট অনুযায়ী, 2016 সালে 2.01 বিলিয়ন টন কঠিন বর্জ্য উৎপাদিত হয়েছিল যেখানে 242 মিলিয়ন টন প্লাস্টিক বর্জ্য ছিল এবং 17 মিলিয়ন টন টেক্সটাইল বর্জ্য ছিল যা দিনে জনপ্রতি 0.74 কেজি ।
এটা ধরে নেওয়া হয় যে বার্ষিক বর্জ্য উৎপাদন ২০১৬ সালের থেকে ৭০% বাড়িয়ে ২০৫০ সালে ৩.৪০ বিলিয়ন টন হবে।এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্য থেকে মুক্তি পেতে হলে একমাত্র উপায় হল সেগুলি পুনর্ব্যবহার করা বা Recycle করা। 

Textile recycling এমন এক প্রক্রিয়া যার দ্বারা পুরানো পোশাক এবং অন্যান্য বস্ত্র কে নতুন করে উপাদান করা হয় বা পুনরায় ব্যবহার করা হয়। অন্যভাবে বললে “পুনর্ব্যবহারযোগ্য বর্জ্য কে পুনরায় ব্যবহারযোগ্য উপকরণে রূপান্তর করা” 

তো, কেন এই রিসাইক্লিং?
আপনারা লক্ষ্য করলে দেখবেন রিসাইক্লিং পরিবেশগত এবং অর্থনৈতিক উভয় ক্ষেত্রেই উপকারী।তার যথেষ্ট কারণ আছে। যেমন :

রিসাইক্লিং এর মাধ্যমে, বিশ্বব্যাপী বর্জ্যের পরিমাণ হ্রাস করার পাশাপাশি বর্জ্য দ্বারা সৃষ্ট দূষণ হ্রাস করা যেতে পারে। যেহেতু কাঁচামাল (টেক্সটাইল এবং প্লাস্টিক বর্জ্য) ইতিমধ্যে রঙ্গিন করা তাই পুনর্ব্যবহার প্রক্রিয়ায় রঙ এর ব্যবহার শূন্য ,অর্থাৎ ডাইং এর প্রয়োজন নেই। ফলে রাসায়নিক এবং জলের ব্যবহার কম। আর রাসায়নিক কম পরিমাণে ব্যবহার করা হলে, উৎপাদিত পণ্যে হবে আরো পরিবেশ বান্ধব । 
উৎপাদন প্রক্রিয়াটি কম ধাপে দ্রুত এবং সহজ প্রক্রিয়া তৈরি হবে যার ফলে, জ্বালানি বা বিদ্যুৎ শক্তির ব্যবহার কমে যাবে।  এখানে বর্জ্য পদার্থ কাঁচামাল(টেক্সটাইল এবং প্লাস্টিক বর্জ্য) হিসাবে ব্যবহৃত হয় ।সুতরাং, কাঁচামাল কেনার ব্যয় কমে যাবে। এটি ডাইং, রাসায়নিক এবং জলের খরচ সাশ্রয়ী। Manufacturing cost কম কারণ উচ্চ মূল্যে তুলা কিনতে হচ্ছে না। মানুষ যেহেতু দিন দিন পরিবেশের সতর্ক হচ্ছে তাই পুনর্ব্যবহারযোগ্য পোশাক পণ্যের বিশ্বব্যাপী চাহিদা বেড়েই যাচ্ছে ।

এখন মনোযোগ দেওয়া যাক প্রকারের উপর । আমাদের টেক্সটাইল শিল্পে, রিসাইক্লিং প্রধান দুটি ধরণের উপর ফোকাস করে। প্রথমত, প্রাক-ভোক্তা পুনর্ব্যবহার (Pre-Consumer Waste) এবং দ্বিতীয়ত “পোস্ট-কনজিউমার রিসাইক্লিং (Post-Consumer Waste)” ।

Pre-Consumer Waste যা শিল্পোত্তর বর্জ্য নামেও পরিচিত। একটি পোশাক বানানোর সময় ফেব্রিকে cutting, stitching or weaving মতো উৎপাদন প্রক্রিয়া চলে, এই সময়ে ফেব্রিকের কিছু অংশ বাদ পরে সেগুলিকেই Pre-Consumer Waste বলা হয়েছে । এটা Pre-Consumer Waste বলা হয় কারণ এটি কোনও গ্রাহকের কাছে পৌঁছায়নি। ফ্যাব্রিকের টুকরো, উৎপাদন প্রক্রিয়া থেকে সংগৃহীত প্লাস্টিকের বোতলের স্ক্র্যাপগুলি Pre-Consumer Waste এর উদাহরণ। 

অন্যদিকে The Post-Consumer waste হলো একটি পণ্য ভোক্তাদের ব্যবহার করার পরে প্রাপ্ত পুরোনো জামা কাপড়। এই ধরণের পণ্য সাধারণত ক্ষতিগ্রস্থ , ফ্যাশনের বাইরে, মালিকের প্রয়োজন হয় না বা বাতিল । একে Post-Consumer বলা হয়েছে কারণ ভোক্তা পণ্যটি গ্রহণ করেছে। পুরানো পোশাক, বাড়ির ফ্যাব্রিকের টুকরো, বাড়ি থেকে সংগৃহীত প্লাস্টিকের বোতল এবং রেস্তোরাঁগুলি ভোক্তা-পরবর্তী বর্জ্যে Post-Consumer Waste এর অন্যতম প্রধান উদাহরণ।

ফ্যাব্রিকের প্রকারের উপর নির্ভর করে Pre-Consumer and Post-Consumer fabrics থেকে 2 প্রধান প্রক্রিয়া দ্বারা তন্তু পাওয়া যেতে পারে, Mechanical Process & Chemical Process.

Mechanical Process of Manufacturing Yarn from Fabric Waste: 
যান্ত্রিক প্রক্রিয়ায়, সাধারণত তুলা ভিত্তিক কাপড় ব্যবহৃত হয়। এই প্রক্রিয়ায়,cutting, shredding এবং carding মত বিভিন্ন পদ্ধতির মাধ্যমে ফাইবারে রূপান্তরিত করা হয়. তখন ফাইবার থেকে সুতা এবং সুতা থেকে woven, non-woven বা knitting ফাইবার রুপান্তরিত করা যায়। সমাপ্ত পণ্য গুলি অটোমোবাইল, কার্পেটিং, খেলনা ইত্যাদিতে অন্তরক এবং শব্দ শোষণের জন্য পোশাকের আস্তরণ, হোম টেক্সটাইল গৃহসজ্জা তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।প্রাপ্ত পণ্য গুলি অটোমোবাইল, কার্পেটিং, খেলনা হিসেবে, অথবা অন্তরক এবং শব্দ শোষণের জন্য পোশাকের আস্তরণ, হোম টেক্সটাইল তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

Chemical Process of Manufacturing Yarn from Fabric Waste: রাসায়নিক প্রক্রিয়ায়, cutting, melting, extruding এবং carding মতো বিভিন্ন পদ্ধতির মাধ্যমে ফাইবারে রূপান্তরিত করা হয়। সাধারণত, পলিয়েস্টার এবং সিন্থেটিক কাপড় এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়। প্রথমে পোশাকগুলো ছোট ছোট টুকরো করে কাটা হয়, অতঃপর তা granules এ নেওয়া হয় এবং গলানো হয় . পরে গলে যাওয়া চিপগুলি দিয়ে ফ্যাব্রিক বানানো হয়। অবশেষে, এই তন্তুগুলি রূপান্তরিত হয় polyester yarn এবং polyester fabric এ। এই গুলো rags, furniture স্টাফিং & padding ইত্যাদি ব্যবহার করা যেতে পারে। 

আরও একটি রিসাইক্লিং হলো Manufacturing Yarn from Plastic Waste:  
প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে সুতা উৎপাদনের জন্য প্রথম পদক্ষেপ বোতল সংগ্রহ এবং তাদের থেকে ক্যাপ এবং লেবেল অপসারণ করা হয়। তারপর বোতলগুলি তাদের রঙ অনুযায়ী আলাদা করা হয়। পরিষ্কার বোতল সাদা সুতা উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত হয়, সবুজ বোতল সবুজ সুতা উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত হয় এই ভাবে বাকি রং এর জন্য। পরে বোতলগুলি ছোট ছোট টুকরোয় টুকরো করা হয়, পরিষ্কার করা হয় এবং শুকনো করা হয়। এর পরে বোতলের কাটা টুকরোগুলি extruder নামের একটি মেশিন ব্যবহার করে ফাইবারে রূপান্তরিত হয় যেখানে প্লাস্টিক গরম করে চাপ দেওয়া হয়, এতে মেশিনে থাকা ছোট গর্ত দিয়ে ফাইবার বের হয়ে আসে । এই ফাইবারটি মসৃণ , দীর্ঘ এবং অবিচ্ছিন্ন। এরপর, তন্তুগুলি ছোট টুকরোয় কাটা হয়, অবশেষে তা সুতায় পরিণত হয় । carding, drawing এবং spinning এর মাধ্যমে সুতাই পরিনত করা হয় . এর পরে সুতা ফ্যাব্রিক এ পরিনত হয় ।

তথ্যসূত্র: https://textilefocus.com/10919-2/https://www.thebalancesmb.com/the-basics-of-recycling-clothing-and-other-textiles-2877780

Writer information :
Md. Abir Hasan 
Department: Textile Engineering
BGMEA University of Fashion and Technology 
Mail: [email protected]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Post

Most Popular

Related Post

Related from author

error: Content is protected !! Don\\\\\\\\\\\\\\\'t Try to Copy Paste.